Tuesday, July 22, 2014

সাজেক আপডেট: সেনা টহলযান টহল দিচ্ছে, জনগণ বুদ্ধমূর্তি তৈরীর স্থানে অবস্থান নিয়েছে

উজো বাজারে চলছে সেনা টহল, জনগণ বুদ্ধমূর্তি তৈরির স্থানে অবস্থান নিয়েছে




সাজেকের উজো বাজারে এখন সকাল ১১.০০টার দিকে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। খাগড়াছড়ি থেকে মহিলা পুলিশ আনা হয়েছে। দীঘিনালা-বাঘাইছড়ি সীমান্ত ১০নাম্বার এলাকায় দীঘিনালা পুলিশ অবস্থান নিয়েছে। উজো বাজারের বুদ্ধমুর্তি তৈরীর স্থানে রয়েছে ৪০ জনের উপর পুলিশ। সেনা টহলযান ৩টি কি ৪টি বাজারের এদিক ওদিক টহল দিচ্ছে। একই সাথে বিভিন্ন গ্রাম থেকে জনগণ-নারী-যুব জনতা উজো বাজারে বুদ্ধমূর্তি তৈরীর স্থানে আসছে।
ছবিতে দেখা যাচ্ছে জনগণ বুদ্ধমূর্তি তৈরীর স্থানে বসে আছে। দূরে পথ দিয়ে চলে যাচ্ছে সেনা টহলযান। পথের পাশেই পুলিশ বসে আছে।
 
থেমে নেই বুদ্ধমূর্তি নির্মানের কাজ। সাইনবোর্ড দেয়া হয়েছে। নির্মাণের ভিত্তি গতকাল ছিলো একফুট, এখন উচ্চতা বেড়েছে কয়েকফুট!

কিছুক্ষণ পরে বাঘাইছড়ি উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা আসবেন বলে খবর পাওয়া গেছে। তিনি কী বলবেন!?
তিনি কী আইন দেখাবেন! নাকি অনুরোধ করবেন!? তিনি কি প্রশাসনের চোখ রাঙানি দেখাবেন!?
নাকি তিনি ১৪৪ ধারা জারির পথ ধরবেন!?
নাকি তিনি বিজিবি ক্যাম্প স্থাপনের জন্য এলাকার জুম্ম জনগণকে উচ্ছেদের ব্যবস্থা নিতে চাইবেন!?
আমরা অপেক্ষায় আছি!!

রাঙামাটির সাজেকবাসীর জায়গা জমি রক্ষার সংগ্রামে শরীক হোন!

জায়গা জমি রক্ষার সংগ্রামে শরীক হোন!
সাজেকের রাতের খবর(২২ জুলাই, ২০১৪)
সারাদিন আজ বাঘাইছড়ি প্রশাসন তথা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুমন চৌধুরী পুলিশ বাহিনীর বিশাল ফোর্স নামিয়ে দিয়ে সাজেকের উজো বাজারের জনতাকে বুদ্ধ মূর্তি নির্মাণে বাধা দিতে যথাসাধ্য চেষ্টা চালিয়ে গিয়েছে।
এভাবে জনগণকে বুদ্ধমূর্তি নির্মাণের ক্ষান্ত রাখতে না পেরে বিকাল থেকে দীঘিনালা-বাঘিইছড়ি থেকে পুলিশ আর্মি ফোর্স (সংখ্যা আনুমানিক ২০০/২৫০)এনে উজো বাজারে কাছে জমায়েত করে রেখেছে।
এখন রাত আটটার দিকে ৩০/৪০ জনের আর্মির একটি দল উজো বাজারে মহড়া দিচ্ছে।
জনগণ এখনো উজো বাজারের কাছে যেখানে বুদ্ধমূর্তি নির্মাণ করার কথা সেখানে জড়ো হয়ে অবস্থান করছে।
যারা অধিকার আদায়ের লড়াইয়ে শরীক হতে চান- যারা লড়াই সংগ্রাম করে মাথা উচু করে বাচতে চান- তাদের অনুরোধ-আহ্বান- যে যেখানেই থাকুন না কেন, সাজেকবাসীর সাথে থাকুন, তাদের পাশে দাড়ান-বিভিন্ন স্থানে মিছিল মিটিং সভা সমাবেশ প্রতিবাদ কর্মসূচির আয়োজন করুন!
জায়গা জমি রক্ষার সংগ্রামকে উৎসাহিত করুন!