Sunday, December 4, 2016

ফিডেল ক্যাস্ট্রো- যিনি তাঁর মৃত্যুর পরও বিপ্লবের পতাকা উচ্চে তুলে ধরবেন!

ফিডেল ক্যাস্ট্রোর ছবির পাশে লেখা রয়েছে-
তিনি অসম্ভবের বিরুদ্ধে লড়াই করেছেন, এবং বিজয় অর্জন করেছেন

তারিখ: ২৭ ডিসেম্বর, ২০১৬
[মূলত, জানতে চাওয়াকে আরো ভালোভাবে আত্মস্থকরণের জন্যই  আমার লেখাসমূহের অবতারণা।  ক্যাস্ট্রোকে নিয়ে অনেকেই লিখেছেন। লেখায় হয়তো তথ্য দেয়া হয়েছে, অথবা কোথাও আবেগের আতিশয্যের কারণের তার বিপ্লবী জীবনের বস্তুগত ভিত্তিকে ভালভাবে উপস্থাপন করা সম্ভব হয়নি। অথবা তাঁকে যারা শত্রুশিবিরের অন্তর্ভূক্ত করেছেন তারা তাঁকে অতিমাত্রায় চিত্রিত করেছেন,  এবং যারা তাঁকে ভালবেসেছেন তারা তাঁকে নিয়ে স্তুতি রচনা করেছেন। কিন্তু আমার ব্যক্তিগতভাবে মনে হয়েছে, তাঁকে আরো নানাভাবে বিশ্লেষণ করা দরকার, কেননা, তিনি বিশ্ববাসীর এমন এক সম্পদ, তিনি এমন এক অনুকরণীয় ব্যক্তিত্ব যাকে নিয়ে আমরা যে কেউই আলোচনা করি না কেন, আমরা তাঁর কাছ থেকে গুণাবলীসমূহ বা যোগ্যতা বা দক্ষতাসমূহ শিখতে চেষ্টা করতে পারব অবশ্যই। এবং তাঁকে নিয়ে এই পর্যালোচনা আমাদের সবার জন্য, রাজনীতিবিদদের জন্য, সমাজ নেতৃত্বের জন্য, সংস্কৃতিমনাদের জন্য, পরিবর্তনের আকাংখা লালনকারীদের জন্য অব্শ্যই শিক্ষণীয় ফলপ্রসূ কিছু এনে দেবে বলেই প্রতীয়মান। সুতরাং তাকে নিয়ে  এই লেখা হলো সেই উদ্দেশ্যকে সামনে রেখে।  লেখায় দুর্বলতা থাকুক, কিন্তু তা থেকে আমরা নিজেকে বা নিজেদের কিছুটা তুলনাত্মক বিচার করতে পারব এই প্রত্যাশা রইল। ধন্যবাদ]

নতুন কিউবা গঠনের কারিগর ক্যাস্ট্রো
পুঁজিবাদের মোড়ল আমেরিকা বা ইউনাইটেড স্টেটস অব আমেরিকা’র মাত্র ৯০ কিলোমিটার দূরে জন্ম নিয়েছিল একটি কম্যুনিস্ট রাষ্ট্রের। ৪৪২১৮ বর্গমাইল আয়তনের সেই নতুন রাষ্ট্রের জন্মকালীন ধাত্রীর ভুমিকা যিনি নিয়েছিলেন তিনি হলেন ফিডেল ক্যাস্ট্রো। একনামে নিশ্চয়ই আমরা তাকে সবাই চিনি! ১৯২৬ সালের ১৩ আগস্ট তিনি জন্মেছিলেন। এবং প্রায় নব্বই নছর ধরে এই ধরামর্ত্যে জীবন কাটিয়ে তিনি চলে গেলেন গত ২৫ নভেম্বর, ২০১৬ ইং কিউবা’র স্থানীয় সময় রাত ১০.০০ টায়(বাংলাদেশ সময় শনিবার সকাল নয়টায়)।
ফিডেল ক্যাস্ট্রোর পোশাকী নাম ফিডেল আলেসান্দ্রো ক্যাস্ট্রো রুজ। পিতার নাম এনজেল ক্যাস্ট্রো, যাঁর মূল শেকড় ছিল স্পেনের উত্তরপশ্চিমাঞ্চলীয় গ্যালিসিয়া নামক এলাকায়। যেভাবে অন্য অনেকেই এসেছিল সেভাবে ঠিক তিনিও এসেছিলেন কিউবায় কোন অনির্দিষ্ট এক কারণে। এরপর তিনি বাগান মালিক হয়ে নব্য ধনী হয়ে উঠেন। তারপর তিনি লিনা রুজ গনজালেজ নামে এক নারীকে দ্বিতীয় স্ত্রী হিসেবে স্বীকৃতি প্রদান করেন। এবং এই নারীর গর্ভে  জন্ম নেয়া সাত সন্তানের মধ্যে একজন হিসেবে এনজেল ক্যাস্ট্রোর ঔরসে জন্ম নেন ফিডেল ক্যাস্ট্রো। জন্মস্থান কিউবার পূর্বাঞ্চলীয় ওরিয়েন্ট প্রভিন্সের বিরান নামক এলাকা।
ছয় বছর বয়সে ফিডেল ক্যাস্ট্রোকে কিউবার শান্তিয়েগোতে লেখাপড়া শিখতে পাঠানো হয়। এরপর হাভানার একটি কলেজে তিনি ১৯৪৫ সালের দিকে ভর্তি হন। এসময় তিনি লেখাপড়ার দিকে মনোযোগ দেয়ার চেয়ে খেলাধুলায় সময় কাটানোর দিকে বেশি সময় দেন। এরপর হাভানা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হলে তিনি রাজনীতিতে দীক্ষা নিতে থাকেন। প্রথম দিকে তিনি ছিলেন রাজনীতি সম্পর্কে অসচেতন ’অজ্ঞ’ একজন ব্যক্তি। কিন্তু কালের পরিক্রমায় সেই ’অজ্ঞ’ ব্যক্তি পুরো বিশ্বের রাজনীতিতে জীবনের শেষ পর্যন্তও এবং মরণের পরেও আরো অনেক বছর বা কাল ধরে নিশ্চয়ই জ্ঞানকান্ডসহ বাস্তব রাজনীতির দিকনির্দেশক হিসেবে থাকবেন এটা ধরেই নেয়া যায়!
বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে তিনি ছাত্র সংসদ নির্বাচনে ’সততা-শিষ্টতা ও ন্যায়পরায়নতা’ এই শ্লোগানকে ভিত্তি করে ছাত্র সংসদ নির্বাচেনে সভাপতি পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন এবং পরাজয় বরণ করেছিলেন।  তিনি সান্তিয়াগোর  একটি মিশনারী স্কুলে লেখাপড়া করেন। স্কুলে থাকার সময় তিনি দুর্দান্ত রকমের দুষ্টুমি করতেন।  ছাত্রাবস্থায় প্রথম জীবনে তিনি খেলোয়ার হতে চেয়েছিলেন।  ১৯৪৫ সালে তিনি যখন হাভানা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন তখন তার বয়স ছিল ১৯ বছর।  লম্বায় ছয় ফুট।   বিশ্ববিদ্যালয়ে থাকার সময় তিনি একবার কিউবার আরো ৩ হাজার জনের একটি দলের সাথে যোগ দিয়ে ডোমিনিকান রিপাবলিকের স্বৈরশাসক ট্রুডিলোকে হটিয়ে দেয়ার প্রচেষ্টায় অংশ নেন। কিন্তু তারা বোটে করে ডোমিনিকান রিপাবলিকে যাবার সময় কিউবার পুলিশ তাদের ধরে ফেলে।  ক্যাস্ট্রো নৌকা থেকে ঝাঁপিয়ে পরে সাঁতার কেটে পালিয়ে যেতে সক্ষম হন। 
বিশ্ববিদ্যালয়ের খেলোযার টীমে নিগ্রোদের অংশগ্রহণের দাবি জানিয়ে  যে আন্দোলন হয় তাতেও তিনি অংশগ্রহণ করেন। 
১৯৪৮ সালের ১২ অক্টোবর তিনি মার্থা দিয়ার বালাট নামে এক মহিলাকে বিয়ে করেন। তবে ১৯৫৫ সালের দিকে তাদের সম্পর্ক ভেঙে যায়।  এরই মধ্যে তাকে কয়েকবার জেলে যেতে হয়।  ১৯৫০ সালে তিনি আইনে স্নাতক ডিগ্রি লাভ করেন। 
১৯৫৯ সালে যখন সশস্ত্র বিপ্লবের মাধ্যমে বাতিস্তা সরকারকে উচ্ছেদ করতে সক্ষম হন তখন তার বয়স ছিল মাত্র ৩২ বছর।
বিপ্লবের কেন্দ্রভূমি সিয়েরা মায়েস্ট্রা পর্বতে ফিডেল ক্যাস্ট্রো


কিউবার বিপ্লবী রূপান্তরের প্রথম ধাপ
কিউবায় ১৪৯২ সালের অক্টোবর মাসে কলম্বাস তার জাহাজ নিয়ে আসেন। কিউবাকে দেখে তিনি অভিভূত হন। তিনি কিউবাকে মানুষের চোখে দেখা পৃথিবীর সবচেয়ে মনোরম ভূমি বলে মন্তব্য করেন। এই কিউবায় তেল বা কয়লা নেই। তবে সম্পদ হিসেবে রয়েছে লোহ ও নিকেল। 
বিপ্লবের আগে কিউবা ছিল গরীব একটি দেশ। দেশটির কৃষি সম্পদের ৭১ ভাগ ছিল মাত্র ৭ ভাগ মানুষের দখলে। এবং পুরো দেশের চাষযোগ্য জমির অর্ধেক অংশে তখন আখ চাষ করা হত। কিউবা ছিল তখন স্প্যানিশ কলোনী। আমেরিকা তার কাছের এই স্প্যানিশ কলোনীকে একবার মাত্র ১০০ মিলিয়ন ডলারের বিনিময়ে স্পেনের কাছ থেকে কেনার প্রস্তাব দেয়। তবে স্পেন সে প্রস্তাব মেনে নেয়নি। কিন্তু আমেরিকা রাষ্ট্রের শাসকরা এই কিউবাকে রাজনৈতিক বা ভৌগোলিক মাধ্যকর্ষন সূত্র অনুসারে আপেলের সাথে তুলনা করতেন। তারা মনে করতেন এই কিউবা স্বাভাবিকভাবেই আমেরিকার দিকে চলে আসবে। কিন্তু দীর্ঘ ৬০ বছর ধরে কিউবার বিপ্লবী সমাজতান্ত্রিক সরকার আমেরিকার এই দৃষ্টিভঙ্গিকে নাকচ করে দিয়েছে। বরঞ্চ এখন কিউবা মাধ্যাকর্ষণের সূত্র অনুযায়ী আমেরিকার বিপরীত মেরুতেই অবস্থান করছে! 
কিউবার জনগণ ১৮৮৬ সালে একবার স্পেনের বিরুদ্ধে সশস্ত্র সংগ্রাম পরিচালনা করে। প্রায় ১০ বছর ধরে এই সংগ্রাম চলে। প্রায় ৮০ হাজার স্প্যানিশ সৈন্য নিহত হবার বিনিময়ে কিউবা স্প্যানিশ কলোনী হিসেবে থেকে যায়। ১৮৯৮ সালের দিকে কিউবা স্পেনের বিরুদ্ধে যখন লড়াই করছিল তখন আমেরিকা কিউবাকে নিউটনের মাধ্যাকর্ষসূত্রের ’আপেল’ হিসেবে বিবেচনা করে যুদ্ধে হস্তক্ষেপ করে। আমেরিকার কংগ্রেস ১৯ এপ্রিল এই সিদ্ধান্ত নেয় যে, স্পেনকে কিউবা থেকে তার সামরিক উপস্থিতি সরিয়ে নিতে হবে। কিউবাকে স্বাধীন দেশ হিসেবে এতে বিবেচনা করা হয়। এবং স্পেনকে সামরিকভাবে মোকাবেলা করা হবে বলে কংগ্রেসে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। ১৯৯৮ সালের ১০ ডিসেম্বর প্যারিসে এক চুক্তির মাধ্যমে কিউবাকে স্বাধীনতা প্রদানের কথা বলা হয়। ১৮৯৯ সালের জানুয়ারি মাসের ১ তারিখ স্প্যানিশ সৈন্য কিউবা থেকে চলে যায়। কিন্তু সাথে সাথে আমেরিকার সৈন্যবাহিনীর প্রভাব প্রতিষ্ঠিত হয়। কিউবায় আমেরিকার সেনা উপস্থিতি ও প্রভাব পাকাপাকি করার জন্য আমেরিকা কিউবার সংবিধানে এক সংশোধনী বা আইন যুক্ত করে যা প্ল্যাট আ্যামেন্ডমেন্ট নামে পরিচিত। ১৮৯৯ থেকে ১৯২০ সাল পর্যন্ত আমেরিকা কিউবায় রাজনৈতিক  ও অর্থনৈতিক উপদেষ্টা নিয়োগ দিয়ে কিউবাকে নিয়ন্ত্রণ করতো। আমেরিকার ব্যবসায়ীরাই তখন কিউবার অর্থনীতির প্রায় সকলকিছু নিয়ন্ত্রণ করতেন।  ১৯৩৪ সালে কিউবায় আমেরিকা নিয়ন্ত্রিত ও সমর্থিত বাতিস্তা ক্ষমতায় আরোহণ করে। ১৯৫২ সালের ১ জুন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবার কথা। কিন্তু বাতিস্তা সেই নির্বাচনের আগেই ক্ষমতা পাকাপোক্ত করার জন্য সেনাবাহিনীকে নিজের করায়ত্তে নিয়ে ক্ষমতা সংহত করে। 
বাতিস্তার এই ক্যুদেতার বিরুদ্ধে ২৫ বছরের যুবক ক্যাস্ট্রো আদালতে গিয়ে বাতিস্তার বিরুদ্ধে কোড অব সোশ্যাল রুলস ভঙ্গে অভিযোগ তোলেন এবং জোর দিয়ে বলেন আইন ভঙ্গের জন্য বাতিস্তাকে ১০৮ বছর সাজা দেয়া দরকার। ক্যাস্ট্রো তখন মাত্র দুই বছর হলো হাভানা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আইনের উপর ডিগ্রি নিয়েছেন। সাধারণ এক যুবক ক্যাস্ট্রোর এই আইনী যুক্তি খাটলো না। আদালত নীরবতা পালন করলো। কিন্তু এদিকে ক্যাস্ট্রো এই উপলব্ধিতে এলো যে, বিপ্লব ছাড়া এই স্বৈরাচারী শাসন থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব নয়। তিনি একবছর ধরে ২০০ জন পুরুষ ও সাথে আরো দুইজন নারীকে নিয়ে প্রশিক্ষণ দিয়ে তাদের নিয়ে সশস্ত্রভাবে লড়াই করার প্রস্তুতি নিতে লাগলেন। এবং ১৯৫৩ সালের ২৬ জুলাই তিনি শান্তিয়াগোতে অবস্থিত এক হাজার সৈন্যের মোনকাডা ঘাঁটিতে হামলা চালালেন। ক্যাস্ট্রো ধরা পড়লেন এবং আর প্রায় সবাই নিহত হলেন। বাতিস্তা সরকার এই বিপ্লবী সন্ত্রাসবাদী ও তাদের সমর্থকদের উপর নির্মম নিপীড়ন চালালো। ব্যর্থ হয়ে গেল প্রথমবারে এই সামরিক অভ্যুত্থান প্রচেষ্টা। 
ক্যাস্ট্রোকে আদালতে প্রশ্ন করা হলো, বেসামরিকভাবে আন্দোলনের পথ তিনি কেন নেননি? জবাবে খুব সোজাভাবে তিনি বললেন যে, কিউবায় এটাই সত্য যে এখানে কোন ধরণের স্বাধীনতা নেই। গত ১০ মার্চ থেকে কেউই কোন কথা বলতে পারছে না। আমি বাতিস্তা সরকারকে আদালতে দাঁড় করিয়েছিলাম। কিন্তু আদালত তা আমলে নেয়নি। 
এরপর এই অভ্যুত্থানের বিচার চলাকালীন ক্যাস্ট্রোকে আদালতে আনা হয়নি। ক্যাস্ট্রো তার একজন সহযোগীকে দিয়ে আদালতের কাছে একটি চিঠি পাঠান। সেই চিঠিতে তিনি আদালতে তাকে উপস্থিত থাকার এবং নিজের কাজের পক্ষে কথা বলার সুযোগ করে দিতে বলেন। তিনি এই চিঠিতে লেখেন- আমি রাষ্ট্রের পৌরুষদীপ্ত ভূমিকা আশা করছি। এছাড়া তিনি বলেন, ’আমার দিক থেকে, আমার পুরো জীবনে যদি আমাকে আমার অধিকার ও মর্যাদার এক কণাও বিসর্জন দিতে হয়, তবে আমি শত হাজার বার তা বিসর্জন দিতে সচেষ্ট থাকব।’ তিনি এরপর জোর দিয়ে এই উদ্ধৃতি প্রদান করেন- ’অন্ধকার গভীর গুহায় আটকে পড়া যৌক্তিক ন্যায়নীতি একটি সৈন্যবাহিনীর চেয়েও বেশি কিছু করতে পারে।’
”For my part, if for my life I have to cede an iota of my right or of my honor, I prefer to lose it a thousand times: "A just principle from the depth of a cave can do more than an army."
পরে অক্টোবরের দিকে তাকে ্আরেকবার কোর্টে হাজির করা হয়। এ সময় তিনি কথা বলার সুযোগ পান। তিনি একনাগাড়ে ৫ ঘন্টা আলোচনার সময় তিনি বিপ্লবের সপক্ষে কথা বলেন, কথা বলেন কিউবার জনগণের পক্ষে, তারা সশস্ত্রভাবে সেনাবাহিনীর ঘাঁটিতে যাবার পরে সেখানে তারা প্রথমে সৈন্যদের অত্যাচারী শাসকের পক্ষ ছেড়ে আসার জন্য আহ্বান জানান, কিউবার জনগণের অর্থনৈতিক বঞ্চনা-দৈন্যদশা ইত্যাদির কথা তিনি তুলে ধরেন। তিনি তার বক্তব্যে বিপ্লবের পক্ষে কথা বলেন। এই বক্তবের এক অংশে তিনি বলেন, ’শহীদ যারা হয়েছেন তাদের কবর হলো আমাদের সময়ের সবচেয়ে নৈবেদ্য দেয়ার সবচেয়ে সুন্দর বেদী। যখন আমাদের পিতৃভূমির কোলে কেউ মারা যায়, তখন মৃত্যুর সমাপ্তি ঘটে, কারাগারের দেয়াল শেষপর্যন্ত ভেঙে যায়, এবং মৃত্যুর শেষে জীবনের শুরু হয়।’ মৃত্যুর কাছাকাছি দাঁড়িয়ে তাঁর এই দৃপ্ত ঘোষনায় বোঝা যায় তিনি কারাগারের প্রকোষ্ঠে বন্দী থেকেও স্বপ্ন দেখেছেন জীবনের, সংগ্রামের, একটি বিপ্লবের। 
”For the graves of the martyrs are the most beautiful altars of our day. When one dies In the arms of a grateful fatherland Death ends, prison walls breakFinally, with death, life begins.”
তিনি কিউবার সংবিধানের ৪০ ধারার উল্লেখ করে বলেন, প্রতিরোধ করার অধিকার সংবিধানে রয়েছে। সুতরাং আমাদের এই প্রতিরোধ সংগ্রাম সংবিধান সম্মত। তিনি আদালতকে বলেন, মহামান্য আদালত সুপ্রাচীন কাল থেকেই বিদ্রোহ করার অধিকারকে যেকোন মতবাদ, আদর্শ ও বিধানে স্বীকৃতি দেয়া হয়েছে। তিনি তার বক্তব্যে আমেরিকার স্বাধীনতার ঘোষনা, ফ্রান্সের মানুষের অধিকার শীর্ষক ঘোষনাসহ বিভিন্ন দার্শনিকের উদ্ধৃতি ব্যবহার করেছেন। তিনি এ সকল উদ্ধৃতি দিয়ে বলতে চেয়েছেন যে, যখন কোন শাসক অত্যাচারী হয়, যখন শাসক জনগণকে ন্যায়ানুগভাবে শাসন করে না, তখন অত্যাচারী শাসককে সরিয়ে দেয়ার অধিকার সাধারণ জনগণের রয়েছে। 

আদালত ক্যাস্ট্রোকে ১৫ বছরের কারাদন্ড প্রদান করে। ক্যাস্ট্রোকেআটকের দুই বছর পরে বাতিস্তা সরকার জনগণের আস্থা অর্জনের জন্য এবং নিজেকে জনগণের কল্যাণের সরকার প্রমাণের জন্য আটক রাজবন্দীদের মুক্তির ব্যবস্থা নেয়।
এ সময় ক্যাস্ট্রো ও তার সহযোদ্ধাদের মুক্তি দেয়া হবে এই কথা জানাজানি হয়ে যায়। ক্যাস্ট্রোও তা জেনে যান। এ নিয়ে তিনিতার এক আইনজীবি বন্ধুকে জেল থেকে লেখেন, আমরা আমাদের মুক্তির বিনিময়ে আমাদের এক কণাও মর্যাদা ভুলুন্ঠিত হতে দেব না। বিশ মাস জেলে থাকার পরেও আমরা এখনো দৃঢ়প্রতিজ্ঞ, এবং সেই প্রথম দিনের মতো এখনো আমরা অবিচল। আমরা কোন অমর্যাদার খাতিরে কোন ধরণের ক্ষমা ঘোষনা গ্রহণ করতে চাই না। 
”Thus, we shall not yield one atom of our honor in exchange for our freedom.... After twenty months we are as firm and unmoved as on the first day. We do not want an amnesty at the price of dishonor.” 
তবে তারপরেও ১৯৫৫ সালের ১৫ মে ক্যাস্ট্রো ও তার সহযোদ্ধাদের মুক্তি দেয়া হয়। এদিকে এই দুই বছরে মধ্যে ক্যাস্ট্রো ও তার সহযোদ্ধাদের ২৬ জুলাই আন্দোলনের ঘটনা সারা কিউবায় কিংবদন্তীতে পরিণত হয়। কিউবায় ক্যাস্ট্রো বিপুল জনপ্রিয় হয়ে উঠলেন। এদিকে সে বছরের জুলাই মাসে ফিডেল ক্যাস্ট্রো মেক্সিকো চলে গেলেন। সেখানে তিনি কর্ণেল আলবার্টো বাইয়ো নামে ৬৩ বছরের এক কিউবানকে পেলেন। তিনি গেরিলা যুদ্ধসহ আফ্রিকান মুরদের বিরুদ্ধে ফ্রান্সের পক্ষে যুদ্ধ করেন, স্প্যানিশ গৃহযুদ্ধে তিনি ফ্রাংকোর বিরুদ্ধে যুদ্ধ করেন। ক্যাস্ট্রো যখন তার সাথে সাক্ষাত লাভ করেন তখন তিনি মেক্সিকোতে ফার্নিচারের দোকান খুলেছেন। কর্ণেল মেক্সিকোর জঙ্গলে ৮২ জনের একটি দলকে তিন মাসের কঠোর প্রশিক্ষণ প্রদান করলেন। 
কিন্তু এরই মধ্যে ক্যাস্ট্রো একবার অস্ত্রসহ মেক্সিকান পুলিশদের হাতে ধরা পড়লেন। তাকে কারাগারে পাঠানো হলো। তাকে ২৩ দিন কারাগারে থাকতে হয়। 
কর্ণেল বাইয়ো তার শিক্ষার্থীদের প্রশিক্ষণ শেষে একথা বললেন যে, যুদ্ধের নিয়ম হলো শত্রুকে নিজের বিষয়ে গোপন রাখা, ধোকা দেয়া। কিন্তু তার বিপরীতে ক্যাস্ট্রো বললেন, তিনি চান কিউবার জনগণ জানুক যে তাদের এই সশস্ত্র দলটি কিউবার জনগণের জন্য লড়তে চায়। কারণ তখনো কিউবার ২৬ জুলাই আন্দোলন সারাদেমের জনগণের সমর্থন পেয়েছে। তিনি বললেন, আমি জানি সামরিকভাবে এটা ক্ষতিকর। কিন্তু এটা একটা মনস্তাত্ত্বিক যুদ্ধও। 
ক্যাস্ট্রো তার ৮২ জন সহযোদ্ধা নিয়ে গ্রানমা নামক নৌকায় উঠলেন এবং রওনা দিলেন কিউবার পশ্চিমে সান্তিয়াগোর উদ্দেশ্যে। কিন্তু পথে তিনি আক্রমণের সম্মুখীন হলেন। এবং শেষ পর্যন্ত মাত্র ১২ জন সহযোদ্ধা নিয়ে তিনি সিয়েরা মায়েস্ট্রা পাহাড় ঘেরা জঙ্গলে পৌঁছলেন। তাদের প্রত্যেকের হাতে একটি রাইফেল আর সাথে ১০টি গুলি মাত্র। সঙ্গে তাদের রয়েছে মাত্র কর্ণেল বায়োর তিনমাসের সামরিক প্রশিক্ষণের অভিজ্ঞতা। আর যা রয়েছে তা হলো ক্যাস্ট্রোর মতো এক ক্ষ্যাপাটে বিপ্লবী। যিনি এই ১২ জন মাত্র বাহিনী দিয়ে লড়াইয়ে বিজয়ী হতে চান! এদিকে ক্যাস্ট্রোর বাহিনীকে নিশ্চিহ্ন করতে বাতিস্তার ৩০ হাজার সৈনিক তখন সার্বক্ষণিকভাবে প্রস্তুত। তাদের হাতে রয়েছে সুসজ্জিত মেশিনগান, ট্যাংক, বিমান ও অন্যান্য সামরিক রসদ। 
কিন্তু তারপরেও ক্যাস্ট্রোর বাহিনী আস্থাশীল বিজয়ের প্রতি একমাত্র এই কারণে যে তারা একা ছিল না। পুরো কিউবায় তাদের সমর্থন ছিল । কারণ, জনগণ অত্যাচারীর বিরুদ্ধে ছিল। 
ক্যাস্ট্রের দলটি সিয়েরা মায়েস্ট্রা পাহাড়ে সেখানকার জনগণকে লেখাপড়া শেখানোর স্কুল গড়ে তুললেন। মাত্র দুই বছরের মধ্যে তারা সেখানে  বিপ্লবী বাহিনী কর্তৃক পরিচালিত ৩০টি স্কুল প্রতিষ্ঠিত করলেন। সেখানে তারা কৃষি সংস্কার কার্যক্রম চালালেন। তারা সেখান থেকে কিউবা লিব্রে নামে একটি পত্রিকা প্রকাশ করলেন ও তা বিপুলভাবে প্রচারের ব্যবস্থা করলেন। ১৮৫৮ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি সিয়েস্ট্রা মায়েস্ট্রা থেকে জধফরড় জবনবষফব বা বিপ্লবের রেডিও তাদের সম্প্রচার কার্যক্রম চালালো। পত্রিকার প্রচারণ, রেডিওতে সরাসরি সম্প্রচার ও নানামুখী জনসচেতনামূলক কাজের কারণে ক্যাস্ট্রোর দল জনগণের কাছে গ্রহণযোগ্য হিসেবে প্রতিষ্ঠিত পেলো। জনগণ বাতিস্তার প্রচার প্রোপাগান্ডায় বিশ্বাস না রেখে ক্যাস্ট্রোর বাহিনীর প্রচার প্রোপাগান্ডার উপর নির্ভরশীল হতে লাগল। 
১৯৫৮ সালের ১২ মার্চ ক্যাস্ট্রোর বাহিনী২৬ জুলাই আন্দোলনের পক্ষ থেকে জনগণের উদ্দেশ্যে একটি ম্যানিফেস্টো প্রচার করলেন। এতে সুনির্দিষ্টভাবে কর্মসূচি ঘোষনা করলেন এবং বাতিস্তা সরকারের বিরুদ্ধে সবদিক থেকে যুদ্ধ ঘোষনা করলেন। ম্যানিফেস্টোতে সরকারকে সে বছরের এপ্রিলের ১ তারিখ থেকে ট্যাক্স না দেয়ার জন্য জনগণের প্রতি আহ্বান জানানো হয়। এছাড়া বলা হয়, শীঘ্রই তারা সাধারণ ধর্মঘটের ডাক দেবেন। বাতিস্তার বাহিনীকে আগামী সে বছরের ৫ এপ্রিলের মধ্যে বাতিস্তার মত অত্যাচারীকে ত্যাগ করে তাদের বাহিনীতে যোগ দেয়ার আহ্বান জানানো হয়। আরো বলা হয়, রাউল ক্যাস্ট্রোর নেতৃত্বে উত্তরে ওরিয়েন্টে প্রদেশে এবং মেজর জুয়ান আলমাইডের নেতৃত্বে পূর্বের দিকে সিয়েরা মায়েস্ট্রা থেকে বিপ্লবী বাহিনী লড়াইয়ে ঝাঁপিয়ে পড়বে। এটা পরিষ্কার হয়ে গিয়েছিল, ক্যাস্ট্রোর বাহিনী এবার লড়াইয়ের জন্য প্রস্তুত হয়েছে। 
এবং বাতিস্তাও এই বাহিনীকে দমনে অগ্রসর হলো। মাত্র ৩০০ জনের গেরিলা দলকে দমন করতে ১২ হাজার সেনা জড়ো করা হলো। ক্যাস্ট্রোর ’মনস্তাত্ত্বিক’ যুদ্ধ চললো। ক্যাস্ট্রো তার বাহিনীকে দিয়ে কারোর উপর নিপীড়ন যেন চালানো না হয় তার কড়া ব্যবস্থা নিলেন। এছাড়া শত্রুপক্ষের সৈন্যবাহিনীর সদস্য যারা তাদের কাছে বন্দী হতো তাদের বিপ্লবে দীক্ষা দেয়ার জন্য উদ্বুদ্ধ করা হতো। এতে বাতিস্তার বাহিনীর মধ্যে সৈন্যদের মনোবল ভেঙে যেতে লাগল। 
১৯৫৮ সালের ডিসেম্বরে ক্রিস্টমাসের সময় ক্যাস্ট্রোর গেরিলা বাহিনি ওরিয়েন্টের শহর দখল করে নিল। সান্তিয়াগো দখলের কাছাকাছি চলে আসরো। গুয়ান্তামো দখলে চলে আসল। ১৯৫৯ সালের ২ জানুয়ারি সকালের দিকে ক্যাস্ট্রোর বাহিনী মোনকাডা দুর্গ দখল করতে সক্ষম হল এবং এর মাধ্যমে বাতিস্তার পতন হলো। 
 শুরু হলো কিউবা ও তার জনগণকে রূপান্তরের বিপ্লবী পদযাত্রা। 
১৯৫৯ সালের জানুয়ারি মাসে বিপ্লবের জয়লাভের পরে ক্যাস্ট্রোর নেতৃত্বাধীন বিপ্লবী সরকার বৃহৎ পুঁজি জাতীয়করণসহ সমাজতান্ত্রিক গঠনকাজে হাতে হাত দেয়। কিউবা এই নবযাত্রায় প্রতিবেশী সাম্রাজ্যবাদী দেশ আমেরিকার বুকে কাঁপন ধরিয়ে দেয়। আমেরিকা অর্থনৈতিক অবরোধ জারি করে। ১৯৬২ সালে জন এফ কেনেডি প্রথম সরকারীভাবে এই অবরোধের ঘোষনা দেন। এবং আজ ৬০ বছর অতিক্রান্ত হবার সময়েও সেই অবরোধ এখনো তুলে নেয়নি আমেরিকা।

ফিডেল ক্যাস্ট্রোর সোভিয়েত ইউনিয়ন ভ্রমণ
১৯৬৩ সালে ৩৬ বছর বয়সে ফিডেল ক্যাস্ট্রো সোভিয়েত ইউনিয়নে যান। সে বছরের এপ্রিল মাসের শেষের দিকে তিনি সোভিয়েতে পৌঁছেন। তার সোভিয়েত যাত্রা খুব গোপনে সংঘটিত হয়। তিনি সোভিয়েতের মুরমানস্ক নামক শহরের উত্তর প্রান্ত থেকে তার সোভিয়েত যাত্রা শুরু করেন। এই শহরের পাশে সেভেরোদভিনস্ক নামক এলাকায় ছিল সোভিয়েতের সাবমেরিন ঘাঁটি। সেখানে তিনিই ছিলেন প্রথম বিদেশী যাকে মিসাইল সিস্টেম দেখানো হয়। 
মস্কোতে তিনি নিকিতা ক্রুশ্চেভের সাথে সাক্ষাত করেন। তিনি রাষ্ট্রীয় অতিথি হিসেবে সেখানে ছিলেন। তবে একবার তিনি রাষ্ট্রীয় প্রটোকল ও নিরাপত্তা ফাঁকি দিয়ে সারারাত একা একা মস্কো ঘুরে বেড়ান। তিনি সোভিয়েত ইউনিয়নে সাধারণ মানুষের সাথে মিশতে চেয়েছিলেন। 
একবার তিনি সাইবেরিয়ায় ভ্রমণের সময় সে এলাকার একটি ট্রেন স্টেশনে করাতিদের সাথে সাক্ষাত করেন। তাদের সাথে তিনি হঠাৎ দেখা করেন। তীব্র শীতের মধ্যে তিনি ট্রেনের কামরা থেকে একটি পাতলা গেঞ্জি গায়ে নিয়ে বেরিয়ে পড়েন। করাতি শ্রমিকরা তখন তৎক্ষণাৎ তাকে গরম কাপড় পরিয়ে দেয়। ক্যাস্ট্রো তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা স্বরূপ তার ট্রাউজারের পকেটে থাকা তিনটি মাত্র সিগারেট তাদের দিতে সক্ষম হলেন। তিনটি সিগারেট পাওয়ার পরে শ্রমিকরা সিগারেটগুলো দিয়ে যা করলেন তা তাকে অবাক করে দিয়েছিল। শ্রমিকরা ক্যাস্ট্রোর কাছ থেকে সিগারেট তিনটি পাওয়ার পরে সেই সিগারেট কেউ একজন না নিয়ে তারা সেগুলোতে আগুন ধরিয়ে প্রত্যেকে একবার মাত্র সিগারেটে টান দিয়ে সবাই যেন সিগারেটে একবার হলেও টান দিতে পারে সেই ব্যবস্থা করলেন। ক্যাস্ট্রো সোভিয়েত শ্রমিকদের সমানভাবে এই ভাগ করে খাওয়া দেখে অভিভূত হন। পরে তিনি লেখেন- পশ্চিমে কেউই এমন আচরণ করেনি। যেই ব্যক্তি সিগারেট পেতো সে-ই তা পকেটস্থ করত। এখন আমি বুঝতে পারি রাশিয়ার জনগণের শক্তির উৎস কোথায় রয়েছে। 

“In the West, no one would have behaved that way. A person who got the cigars first would have pocketed them. Now I understand the strength behind the Russian people,” 
একবার লেনিনগ্রাদ(বর্তমান নাম সেন্ট পিটার্সবুর্গ) এ ক্যাস্ট্রো একটি মিটিঙে যোগ দেয়ার সময় একটি ছোট্ট মেয়ের কাছ থেকে ফুলের তোড়া পান। ক্যাস্ট্রো সেই ছোট্ট মেয়ের নামধাম ঠিকানা জিজ্ঞেস করেন। এবং পরে তিনি সোভিয়েত কর্তৃপক্ষকে সেই মেয়েটির সাথে দেখা করিয়ে দিতে বলেন। প্রথমে সোভিয়েত কর্তৃপক্ষ ছোট্ট মেয়েটির সাথে দেখা করিয়ে দেয়নি। তবে পরে বার বার পীড়াপীড়ি করার কারণে তারা রাজি হয়। ছোট্ট মেয়েটি ছিল একটি অনাথ আশ্রমের ছাত্রী। কিন্তু সোভিয়েত কর্তৃপক্ষ তাকে আরেকটি ভাল স্কুলে নিয়ে যায়। এবং ক্যাস্ট্রোকে সেখানে নিয়ে মেয়েটির সাথে দেখা করার সুযোগ করে দেয়। ক্যাস্ট্রো মেয়েটির সাথে কথা বলেন এবং কথাসূত্রে ছোট্ট মেয়েটিকে তার ’স্কুল’ ঘুরিয়ে দেখাতে অনুরোধ করেন। কিন্তু জবাবে মেয়েটি তাকে বলে যে, সে নিজেও স্কুলের কোথায় কী আছে জানে না, কারণ সে মাত্র দুইদিন হল সেই স্কুলে এসেছে। তাকে সোভিয়েত কর্তৃপক্ষ সেখানে এনেছিল। 
এই ঘটনা ঘটার পরে ক্যাস্ট্রো ভীষণ বিরক্তবোধ করেন। তিনি কর্তৃপক্ষের ’চটকদারিতা’র সমালোচনা করেন। তিনি বলেন, আপনারা আমাকে আকৃষ্ট করতে অনেক কিছু করতে পারেন। কিন্তু আমার তার প্রয়োজন নেই। 
সোভিয়েত ইউনিয়নের সমাজতান্ত্রিক সিস্টেমে তখন আমলাতান্ত্রিকতা নিয়ন্ত্রণ এসে গেছে তা ক্যাস্ট্রোর এই অভিজ্ঞতা থেকে বুঝতে পারা যায়। এবং ক্যাস্ট্রো পরবর্তিতে নিশ্চয়ই সোভিয়েত ইউনিয়নে থাকার সময় প্রাপ্ত এই অভিজ্ঞতাকে তার দেশের বিপ্লবী রূপান্তরের ক্ষেত্রে ইতিবাচকভাবে কাজে লাগিয়েছেন বলে ধরে নেয়া যায়। 

আমরা সৈন্য পাঠাই না, আমরা ডাক্তার পাঠাই
২০০৯ সালে হাইতিতে ভূমিকম্প সংঘটিত হয়। এতে ভয়াবহ মানবিক বিপর্যয়ের সৃষ্টি হয়। কিউবা তাৎক্ষণিকভাবে সেখানে ডাক্তার ও চিকিৎসা সরঞ্জাম পাঠায়। এ বিষয়ে ক্যাস্ট্রো লিখেন- আমাদের দেশ পূর্ণ মনোযোগে মানবিক কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করে যাচ্ছে। যা আমাদের দ্বারা করা সম্ভব, আমরা আমাদের মানবিক ও বস্তুগত সহায়তা অব্যাহত রাখবো। আমাদের জনগণের ইচ্ছাশক্তি আরো দৃঢ়তা পাবে এবং তা আগামীতে আরো শক্তিশালী হয়ে উঠবে কারণ আমাদের জনগণ তাদের ডাক্তার ও কর্মীদের নিয়ে গর্ববোধ করে, যারা তাদের সর্বোচ্চ দায়িত্ববোধ দেখাতে কার্পণ্য করে না। 
তাঁর লেখার শেষে তিনি জোর দিয়ে বলেন- আমরা ডাক্তার পাঠাই, সৈন্য নয়। 
Our country is accomplishing a strictly humanitarian mission.  To the extent that it is possible, it will contribute the human and material resources at its disposal.  The will of our people, who take pride in their medical doctors and workers who cooperate to provide vital services, is strong and will rise to the occasion.
কিউবায় ১৯৬০ সালের জানুয়ারি মাসে ৭২৩ নাম্বার নামক একটি আইন জারি করা হয়। এই আইনের মাধ্যমে স্বাস্থ্যসেবা গ্রামাঞ্চলে নিয়ে যাওয়ার উদ্যোগ নেয়া হয়। এই আইনে কোন ডাক্তারকে অবশ্যই এক বছরের জন্য কোন গ্রামে ডাক্তারীর কাজ করার বাধ্যবাধকতা প্রদান করা হয়।প্রথম ধাপে ৩৫৭ জন ডাক্তার স্বেচ্ছায় এমন গ্রামাঞ্চলে চলে যান যেখানে আগে কোন ডাক্তারই যায়নি। এছাড়া ডাক্তারকে অবশ্যই হাসপাতালে ইন্টার্ন হিসেবে কাজ করার বাধ্যবাধকতা নির্ধারণ করা হয়।  
কিউবা সরকার এটা বুঝেছিল যে, শুধুমাত্র আইন জারি করে বিপ্লবী পরিবর্তন সম্ভব নয়। এজন্য দরকার নানা ধরণের কার্যক্রমের ও উৎসাহ প্রদানমূলক ক্যাম্পেইনের। 
তারা ১৯৬২ থেকে ১৯৬৫ সালের মধ্যে ১৬ দফা লক্ষ্য বাস্তবায়নের চেষ্টা চালায়। এগুলোর মধ্যে অন্যতম হল- শিশু মৃত্যু কমানো, বিভিন্ন রোগের ভ্যাকসিন প্রদান, গর্ভবতী নারীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা, সংক্রামক এবং ছোঁয়াছে রোগের প্রতিকার, প্রতিরোধমূলক ঔষধ ও শ্রমিকদের স্বাস্থ্য সুরক্ষার উদ্যোগ গ্রহণ করা। এই সকল লক্ষ্যকে সামনে রেখে কাজ করা হয় এবং ডাক্তারদের এ বিষয়ে উদ্বুদ্ধ করা হয়। 
The consciousness of the 3,000 who stayed became the “material force” in the production of Cuban health care, as much a material force as the manufacture of pharmaceuticals or the construction of hospitals. 
বিগত ৬০ বছরে কিউবা বিভিন্ন দেশে প্রায় ৬০ হাজার চিকিৎসক প্রেরণ করেছে। এসকল চিকিৎসকের চিকিৎসা সেবা পৃথিবীর প্রায় প্রত্যেক দেশের কোন না কোন জনগণ পেয়েছেন। 

কিউবার শিক্ষাব্যবস্থা
কিউবায় যখন বাতিস্তা সরকার ছিল তখন দেশের অধিকাংশ লোকজন ছিল নিরক্ষর। ক্যাস্ট্রো ক্ষমতা দখল করার পরেই হ্যাঁ, আমি পারি এই শ্লোগানকে ব্যবহার করে দেশব্যাপী স্বাক্ষরতা এবং একইসাথে শিক্ষিতের হার বাড়াতে উদ্যোগ নেন। লোকজনকে বিভিন্ন ব্রিগেডে সংগঠিত করে দেশব্যাপী এই শিক্ষাদান কার্যক্রম চলে। তারা হারিকেন হাতে এবং বই নিয়ে এই কার্যক্রম চালায়। ১৯৬১ সালের মধ্যে দেশে স্বাক্ষরতার হার ৯৮/৯৯ শতাংশে পৌঁছে যায়। কিউবায় শিক্ষা প্রদানের ধরণ ছিল একইসাথে পড়া, লেখা ও সুর করে কবিতার ঢঙে পাঠদানের ব্যবস্থা করা। 
স্কুলগুলো সকালে খোলে। ছাত্রছাত্রীরা স্কুলে যাবার পরে তাদের সেখানে নাস্তার ব্যবস্থা করা হয়। এরপর তাদের পাঠদান পর্ব শুরু হয়। দুপুরে আবার তাদের দুপুরের খাবার দেয়া হয় এবং আরো কয়েকঘন্টা পাঠদান করা হয়। শিশুরা দুপুর থেকে বিকালে স্কুলে নিজেদের মনমত খেলাধুলা বা খেলনা দিয়ে খেলা খেলে সময় কাটায়। যেসকল শিশু স্কুলে যেতে পারে না তাদের জন্য ভ্রাম্যমাণ শিক্ষকেরও ব্যবস্থা করা হয়, যারা ঘরে গিয়ে ছাত্রছাত্রীদের লেখাপড়া শেখায়। প্রাইমারী শিক্ষার কারিকুলামে রয়েছে শিক্ষার্থীদের জন্য নাচ, তাদের স্বাস্থ্য সচেতন করে তোলা, বাগান করা, কাঠে বা লোহায় খোদাই করা, বা সূচিকর্ম বিষয়ে দক্ষতা অর্জনের শিক্ষা দেয়া ইত্যাদি। এছাড়া তাদের বিপ্লবী সংগ্রামের ইতিহাস পড়ানো হয়। 
কিউবায় শিক্ষকগণকে এমনভাবে নির্বাচন করা হয় যেন তারা তাদের পেশার প্রতি অনুগত ও দায়বদ্ধ থাকেন। এক্ষেত্রে তারা কঠোর মান বজায় রাখেন। 
বিপ্লবের প্রথমেই কিউবা উচ্চশিক্ষার দ্বার সবার জন্য উন্মুক্ত কার উদ্যোগ নেয়। হাজার শিক্ষার্থীকে রাজধানী হাভানায় নিঃখরচায় বসবাসের সুযোগ করে দেয়া হয়। এজন্য বহুতলা বিল্ডিঙগুলো ব্যবহার করা হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষাকে ইউনিভার্সালাইজড করার জন্য উদ্যোগ নেয়া হয়।(“Universalization of the University.”)


কিউবায় প্রাথমিক থেকে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা সরকারী খরচে পড়ানো হয়। তবে একটি শর্ত থাকে তা হল লেখাপড়া শেখার পরে শিক্ষার্থীকে অবশ্যই তার নিজের জায়গায় গ্রামে যেতে হবে। 

বিকল্প মিডিয়া প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ
বিশ্বের বৃহৎ তথ্যমাধ্যম মিডিয়ার শতাংশই আমেরিকা ও ইউরোপ নিয়ন্ত্রণ করে। বলতে গেলে এই সকল সাম্রাজ্যবাদপন্থী মিডিয়ার প্রোপাগান্ডা কৌশল দ্বারা বিশ্বের সকলেই নিয়নিন্ত্রত হয়ে থাকে। মিডিয়া আমাদের মাথায় যা ঢুকাতে চায় বা তার আমাদেরকে যেভাবে আবেগাক্রান্ত করতে চায় বা যেভাবে তারা আমাদের মানসিকতাকে গড়ে তুলতে চায় সেই সকল আমেরিকা-ইউরোপ নিয়ন্ত্রিত মিডিয়া আমাদেরকে সেভাবেই তথ্য দিয়ে থাকে। এবং আমরা অবচেতন এবং অসচেতনভাবেই এই বৃহৎ সাংস্কৃতিক আধিপত্যের দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হই। ক্যাস্ট্রো কিউবায় সাংবাদিকদের সাথে এক বৈঠকে প্রথম লাতিন আমেরিকার প্রেক্ষিতে বিকল্প মিডিয়া তৈরী করার উপর গুরুত্বারোপ করেন। সেই পরিকল্পনা অনুযায়ী লাতিন আমেরিকার সমাজতান্ত্রিক দেশগুলোর আর্থিক সহায়তায় ২০০৫ সালের ২৪ জুলাই প্রতিষ্ঠিত হয় ২৪ ঘন্টার স্প্যানশ ভাষার নিউজ চ্যানেল দক্ষিণের টেলিভিশন বা টেলিভিসোরো দেল সুর সংক্ষেপে টেলিসুর। এই টেলিভিশন লাতিন আমেরিকায় প্রতিরোধের চ্যানেল হিসেবে পরিচিতি পায়। 
কিউবার রাষ্ট্রীয় প্রচার মাধ্যম গ্রানমাতে এ বিষয়ে এক মন্তব্যে বলা হয়- আমরা এখন থেকে আমাদের কন্ঠস্বরে আমাদের কথা শুনতে চাই। 

বিপ্লবী পার্টির করণীয় বিষয়ে ক্যাস্ট্রো
একটি বিপ্লবী পার্টিকে অবশ্যই তার ক্যাডার বা কর্মীদের শিক্ষাদানে দক্ষতা দেখাতে হবে। পরিমিতিবোধের সাথে কঠোর শৃংখলা ছাড়া এর কোন সহজ সমাধান নেই। আসুন আমরা আমাদেরকে তাদের থেকে রক্ষা করি বিশেষ করে যারা জনগণের নীতিবোধ এবং তাদের স্বপ্নকে ময়লা পানির মত ড্রেনে ফেলে দেয়। 
The education of the cadres will be the most important task to be mastered by the revolutionary parties. There will never be easy solutions; strictness and exigency must prevail. Let’s guard ourselves especially from those that throw down the drain the people’s principles and dreams together with the dirty water.
এছাড়া তিনি বলেন, পার্টি সদস্যকে অবশ্যই জটিল সমস্যা সমাধানে দক্ষ হতে হবে। যারা পার্টিতে রাজনৈতিক শিক্ষা প্রদান করবেন তাদের অবশ্যই ইতিহাস ও অর্থনীতি বিষয়ে জ্ঞান অর্জন করতে হবে। আমাদের সমাজে সবার দক্ষতা উন্নীতকরণ খুবই প্রয়োজনীয় একটি বিষয়। 
শিক্ষা এবং স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্য শারীরিক পরিশ্রম করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। হোসে মার্তির আদর্শও ছিল কাজ করা ও শিক্ষা অর্জন করা। 
আত্মমর্যাদাবোধ ও মূল্যবোধ গঠন ছাড়া আমাদের বিরুদ্ধ শক্তির বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যাওয়া সম্ভব হতো না, এবং কিউবা সবসময় এই চারিত্রিক বৈশিষ্ট্যকে তাদের নীতিপন্থার অন্তর্ভূক্ত করেছিল। আমাদের দেশ মিথ্যাচার ও অপবাদের দ্বারা হয়রানীর বিরুদ্ধে এই বৈশিষ্ট্য অর্জন করে লড়াই করেছিল। মূল্যবোধের পাশাপাশি উন্নত সংস্কৃতি ও আত্মসচেতনাবোধ বিগত ৫০ বছরের প্রতিরোধকে শক্ত ভিত্তির উপর দাঁড় করিয়েছিল। এবং এটি নেতা বা নেতাদের কোন বিশেষ বুদ্ধিবিবেচনামূলক গুণ ছিল না বরং, এটি ছিল মৌলিকভাবে দেশের জনগণের সবার।|
(This resistance would never have been possible without the dignity and ethics that have always characterized the policies of Cuba, a country harassed with revolting lies and slanders. Alongside ethics, a culture and conscience were built that made possible the feat of more than five decades of resistance. This was not a particular merit of its leaders but basically of its people. )
২০১২ সালে এক লেখায় তিনি বলেন, আমরা যা করেছি তার জন্য অমরা কখনোইা দুঃখপ্রকাশ করবো না। এটাই সত্য যে, পঞ্চাশ বছর পেরিয়ে যাবার পরেও আমাদের মাথা এখনো আমরা উঁচুতে রাখতে পেরেছি। 
”We will never apologize to anyone for what we did. The fact is that half a century has gone by, and here we still are with our heads held high.”
ক্যাস্ট্রো কিউবার কম্যুনিস্ট পার্টির সপ্তম কংগ্রেসে বললেন, শীঘ্রই আমিও অন্য সবার মতো হতে যাচ্ছি। আমাদের সবার জন্যই সেই (জীবনাবসানের) সময় ঘনিয়ে আসবে, কিন্তু কিউবার কম্যুনিজমের ধারণা উতরে যাবে আজীবন! 
লাতিন আমেরিকার ভূমিহীন কৃষকদের আন্দোলনে সক্রিয় এক নেতা ফিডেল ক্যাস্ট্রোর মৃত্যুর পরে লিখিত এক স্মারক বক্তব্যে বলেছেন-
তিনি সার্বক্ষণিকভাবে এবং প্রতিটি ক্ষণে তার জনগণের সাথে, যেকোন প্রতিকূলতায়, যুদ্ধে, উৎপাদন ও জ্ঞান সম্পর্কিত সাংগঠনিক কাজেকর্মে পাশাপাশি থেকেছেন। তিনি চেষ্টার কোন ত্রুটিই রাখেননি এবং উৎসর্গীকৃত এক দৃষ্টান্ত তিনি স্থাপন করেছেন। 
( He was always with his people, every moment, on the front line, in all difficult situations: in war, in the organization of production and knowledge.  He spared no efforts and set an example of the spirit of sacrifice.)
ক্যাস্ট্রো তার ৯০ বছরের পুরো জীবনের মধ্যে ৭০ বছর কাটিয়েছেন রাজনৈতিক কাজে জড়িত থেকে। জীবনের শেষদিন পর্যন্ত তিনি পৃথিবীর জনগণের সত্যিকারের মুক্তির সুমহান কাজের প্রক্রিয়ার সাথে জড়িত ছিলেন। একটু ক্ষণের জন্যও তিনি নিশ্চয়ই তা থেকে বিচ্যুত হননি। 
তিনি কিউবা ও তার জনগণকে নেতৃত্ব দিয়েছেন, সমাজতান্ত্রিক রূপান্তরের চেতনাকে শানিত করেছেন। এবং একই সাথে তিনি ছিলেন বিশ্ব সমাজতান্ত্রিক বিপ্লব বা নিপীড়িত মানুষের আদর্শিক এক নেতা। তাকে যখন আদালতে দাঁড় করানো হয় এবং নানা প্রশ্ন তাকে করা হয় তখন তিনি তার সহযোদ্ধা এক কমরেডকে স্মরণ করে বলেছিলেন যে, সেই ব্যক্তি মারা গেছে তাতে তেমন বিশেষ কিছু হয়নি! ব্যক্তি মারা যায় কিন্তু তার আদর্শ তো রয়ে যায়। 
 তাঁর মৃত্যুর পরে নিশ্চয়ই তিনি সেই আদর্শের বিপ্লবী পতাকা উঁচুতে তুলে ধরবেন! 

বিজয় অর্জিত না হওয়া পর্যন্ত আমাদের সংগ্রাম চালিয়ে যেতে হবে।
“Hasta la Victoria Siempre!”


তথ্যসূত্রঃ 

12.   Cuba-Anatomy of A Revolution, Leo Huberman, Paul M. Sweezy, Monthly Review Press, New York 1960.
১৩. প্রতিরোধ প্রতিস্রোত লাতিন আমেরিকা, শান্তনু দে, ন্যাশনাল বুক এজেন্সি প্রাইভেট লিমিটেড, জানুয়ারি, ২০০৯। 








Friday, December 2, 2016

জেনি ফন ভেস্টফালেন- সমাজ পরিবর্তনের দর্শন প্রতিষ্ঠার প্রধান অংশীদার এবং কার্ল মার্কসের সহধর্মিনী


তারিখঃ ২ ডিসেম্বর, ২০১৬
জেনি ফন ভেস্টফালেন বা জেনি মার্কস। তিনি কার্ল মার্কসের স্ত্রী হিসেবে পরিচিত। কার্ল মার্কসের সহধর্মিনী হিসেবে তিনিও সমাজ পরিবর্তনের বিপ্লবী দর্শনকে তাত্ত্বিকভাবে প্রতিষ্ঠিত করতে ভূমিকা রেখেছিলেন। প্রুশিয়ার অভিজাত পরিবারের সন্তান হিসেবে উত্তর জার্মানের সলসভেদেলে শহরে ১৮১৪ সালের ১২ ফেব্রুয়ারী তাঁর জন্ম। মৃত্যু হয় ১৮৮১ সালের ২ ডিসেম্বর। ৬৭ বছর পর্যন্ত তিনি বেঁচে ছিলেন। সাত সন্তানের জননী হয়েছিলেন। কার্ল মার্কসকে বিয়ে করার পরে তাঁর নাম হয়ে যায় জেনি মার্কস। তাঁর পুরো নাম জোহানা বার্থা জুলিয়া জেনি ফন ভেস্টফালেন।

১৮১৬ সালের দিকে জেনি মার্কসের পিতা ট্রিয়ার শহরে চলে আসেন। সেখানে কার্ল মার্কসের পিতা ও জেনি ফন ভেস্টফালেনের পিতার মধ্যে বন্ধুত্ব ছিল। কার্ল মার্কস তখন ১৩ বছরের বালক।  সেই বয়সেওি তার চোখেমুখে ছিল বিদগ্ধতার ছাপ।  জেনি মার্কসের বাবা ব্যারন লুডভিগ ফন ভেস্টফালেন তাকে নিয়ে হাঁটতে বেরোতেন। এসময় তিনি কার্ল মার্কসকে দান্তে, হোমার, গ্যেটে, শেকসপীয়ারে লেখা থেকে উদ্ধৃতি শোনাতেন। তাঁরা ইউরোপের রাজনীতি নিয়ে আলোচনা করতেন। লুডভিগ ভেস্টফালেন কার্ল মার্কসকে ফ্রেঞ্চ ইউটোপীয়ান সমাজতান্ত্রিক সেইন্ট শিমনের লেখা পড়তে দিতেন। বস্তুত, কার্ল মার্কস যে সমাজ পরিবর্তনের রাজনৈতিক দর্শনের প্রতি আকৃষ্ট হন তার মূলে ছিল জেনির পিতা লুডভিগ ফন ভেস্টফালেনের এই ভূমিকা। এবং কার্ল মার্কস যখন বিশ্ববিদ্যালয়ে তার পিএইচডি থিসিস লেখেন তখন তিনি থিসিসের মুখবন্ধে ব্যারন লুডভিগ ভেস্টফালেনের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। জেনি মার্কসও তার পিতার উত্তরাধিকার বহন করেছেন। তিনিও ছিলেন বিদুষী মহিলা। বিভিন্ন বিষয়ে তাঁর জানাশোনা ও লেখাপড়া ছিল। তিনি একই সাথে ছিলেন আকর্ষনীয়া- ট্রিয়ার শহরে বহু যুবক তরুণের স্বপ্নসাথী। 
তবে হয়তো বা সেই সময়ের পরিস্থিতিতে ইউরোপের মত মুক্ত সমাজব্যবস্থার দেশেও কার্ল মার্কসের মত ভুমিকা জেনি মার্কস নিতে পারেননি। অথবা, কার্ল মার্কসকে  তার আরাধ্য কাজের সুযোগ করে দিয়ে তিনি শ্রমবন্টনের নিয়ম অনুযায়ী প্রধানত গৃহিণীর কাজে নিজেকে জড়িয়ে নিয়েছিলেন স্বেচ্ছায়। নতুবা তিনিও হতে পারতেন বিদুষী কোন লেখিকা অথবা নারী দার্শনিক!
 জেনি মার্কসের মত একজন নারীকে কার্ল মার্কস স্ত্রী হিসেবে পেয়েছিলেন বলেই হয়ত কার্ল মার্কস হতে পেরেছিলেন একজন সমাজ পরিবর্তনের পথপ্রদর্শক দার্শনিক ও বিপ্লবী! জেনি মার্কসের মেয়ে এলিনর মার্কস এভেলিং তার মা’কে স্মরণ করে লিখেছিলেন, স্ত্রী জেনী মার্কসের সহায়তা না পেলে কার্ল মার্কস কোন কিছুই করে যেতে পারতেন না।
আর কার্ল মার্কসও জেনি মার্কসকে ছাড়া ছিলেন যেন হালবিহীন বা পালবিহীন নৌকার মতো। ম্যারী গ্যাব্রিয়েল ’লাভ এন্ড ক্যাপিটাল: কার্ল এন্ড জেনী মার্কস এন্ড বার্থ অব এ রেভ্যলুশন’ বইয়ে কার্ল মার্কসের জীবনে জেনি মার্কসের অপরিহার্যতা সম্পর্কে মন্তব্য করে বলেছিলেন, ’ তিনি(জেনি মার্কস) কার্ল মার্কসের শুধুমাত্র একজন বন্ধু এবং প্রণয়ী বা প্রেমিকাই ছিলেন না। তাদের দু’জনের মধ্যে পরিণয় বন্ধনের ১৩ বছর আগে থেকেই জেনি মার্কস ছিলেন কার্ল মার্কসের বিশস্ত  বৌদ্ধিক আলোচনার সহসাথী। জেনি মার্কসকে ছাড়া কার্ল মার্কসের হৃদয় এবং বুদ্ধিজ্ঞানও কাজ করত না(Neither his heart nor his head functioned without her.) ) ।
জেনি মার্কসের সাথে কার্ল মার্কসের ছোটকাল থেকেই পরিচয় ছিল। জেনি মার্কসের ছোটভাই এডওয়ার্ড ফন ভেস্টফালেনের সাথে কার্ল মার্কসের বন্ধুত্ব ছিল। কার্ল মার্কস জেনী মার্কসের চেয়ে বয়সে ৪ বছরের ছোট ছিলেন। ১৮৪৩ সালের ১৯ জুন তারা দু’জন ট্রিয়ারের কাছে ক্রোয়েটসনাখ শহরে খ্রিস্টান বিবাহ রীতি অনুযায়ী বিয়ে করেন। এর আগে ১৮৩৬ সালের দিকে তারা গোপনে বাগদান সম্পন্ন করেন। ১৮৪৩ সালে যখন তাদের বিয়ে হয় তখন জেনি মার্কসের বয়স ছিল ২৯ বছর আর কার্ল মার্কসের বয়স ছিল ২৫ বছর। 
বিয়ের পরে তারা প্যারিসে চলে যান। সেখানে ১৮৪৪ সালের মে মাসের প্রথম সপ্তাহে তাদের প্রথম সন্তান জেনিচেন বা জেনী জন্ম নেন। পরে প্যারিস থেকে জেনি ট্রিয়ারে তার মায়ের কাছে চলে যান। সেখান থেকে তিনি কার্ল মার্কসকে কয়েকটি চিঠি লেখেন। চিঠিতে দেখা যায় তিনি তাদের ভবিষ্যত সম্পর্কে দুশ্চিন্তা প্রকাশ করছেন। ১৮৪৪ সালের ২১ জুন কার্ল মার্কসকে তিনি লেখেন- 
প্রিয়তম আমার, প্রায়ই আমি গভীরভাবে আমাদের কাছের এবং দূরের ভবিষ্যত নিয়ে চিন্তিত হয়ে পড়ি। এবং এখন যেভাবে নিশ্চিন্ত হাসিখুশী জীবন কাটাচ্ছি তার জন্য আমাকে মূল্য দিতে হবে নিশ্চয়ই। সম্ভব হলে আমাকে এ বিষয়ে পরামর্শ দিও যেন আমি এভাবে চিন্তিত না হই। সবাই একটা নিশ্চিত আয়ের পথ খুঁজে নিতে বলে।  এসকল পরামর্শ শোনার পরে আমি একগাল হাসি দিয়ে বা গালে হাত দিয়ে বা পরনের কাপড় নেড়েচেড়ে বা মাথার টুপি নিয়ে খেলা করে বা চুল নাড়তে চাড়তে সাধারণ উত্তর দিয়ে যাই। কিন্তু এরপরে আমার বুকে যে ছটফটানি ধরে এবং ভবিষ্যত চিন্তা আমাকে যেভাবে উদ্বিগ্ন করে তা দেখার তো আর কেউ থাকে না। 
(Dearest heart, I am often greatly worried about our future, both that near at hand and later on, and I think I am going to be punished for my exuberance and cockiness here. If you can, do set my mind at rest about this. There is too much talk on all sides about a steady income. I reply then merely by means of my rosy cheeks, my clear skin, my velvet cloak, feather hat and smart coiffure. That has the best and deepest effect, and if as a result I become depressed, nobody sees it.)
তবে এরপরই তিনি একই চিঠিতে কার্ল মার্কসকে লেখালেখি বিষয়ে পরামর্শ প্রদান করেন। তিনি লেখেন-
 শুধুমাত্র বিদ্বেষাত্মক ও খিটখিটে টাইপে লেখালেখি করো না। তুমি জানো, তোমার লেখা কতটা পরিমাণে প্রভাবিত হয়ে থাকে। বস্ত যা তা-ই লিখো এবং গভীরে গিয়ে লিখো অথবা সরস হাল্কাচালে লেখার চেষ্টা করো।
 (Only don't write with too much rancour and irritation. You know how much more effect your other articles have had. Write either in a matter-of-fact and subtle way or humorously and lightly.)
 ১৮৪৪ সালের আগস্ট মাসে এঙ্গেলসের সাথে কার্ল মার্কসের দেখা হয় এবং তারা বুদ্ধিবৃত্তিক দার্শনিক আলোচনা চালিয়ে যান। পরে তাদের এই বুদ্ধিবৃত্তিক বৌদ্ধিক বন্ধুত্ব ইতিহাসে অমর হয়ে যায়। এঙ্গেলসের সাথে আলাপ হবার পরে তারা দুইজনে মিলে জার্মানীর সাইলেসীয় তাঁতীদের সংগ্রামে ভুমিকা রাখেন। জার্মানীর সরকার এতে ক্ষুব্ধ হয় এবং কার্ল মার্কসকে প্যারিস থেকে বহিস্কার করতে ফ্রান্স সরকারকে অনুরোধ জানায়।  ১৮৪৫ সালের প্রথম দিকে কার্ল মার্কসকে ২৪ ঘন্টার মধ্যে প্যারিস ছাড়তে বলে ফ্রান্স পুলিশ।
ফ্রান্স সরকার জেনী মার্কসকে আরো কিছুদিন থাকতে অনুমতি দেয়। পরে জেনি মার্কস ঘরের আসবাবপত্র সম্পত্তি সরঞ্জাম বিক্রি করে ব্রাসেলসে যাওয়ার টাকা সংগ্রহ করেন এবং ব্রাসেলসে কার্ল মার্কসের কাছে চলে যান। ব্রাসেলসে তারা চরম অর্থকষ্টে পড়েন। ১৮৪৫ সালের সেপ্টেম্বরে তাদের দ্বিতীয় সন্তান লরা মার্কসের জন্ম হয়। 
১৮৪৬ সালে ব্রাসেলসে কার্ল মার্কস ও এঙ্গেলস কম্যুনিস্ট যোগাযোগ কমিটি প্রতিষ্ঠা করেন এবং ইউটোপীয় সমাজতন্ত্রীদের ভ্রান্ত দর্শনের বিরুদ্ধে লেখালেখি চালিয়ে যান। এসময় জেনী মার্কস কার্ল মার্কসের লেখালেখিতে সহায়তা করেন। তিনি কার্ল মার্কসের হিজিবিজি লেখাগুলো সুন্দর হস্তাক্ষরে লিখে দিতেন। এছাড়া অন্য কাজেও তিনি মার্কসকে সহায়তা করতেন। 
পোল লাফার্গ তাঁর কার্ল মার্কস স্মরণে প্রবন্ধে সম্পর্কে লিখেছেন- কার্ল মার্কসের ”স্ত্রীর বুদ্ধিমত্তা ও ভালমন্দের বিচারবোধ সম্পর্কে এতখানি শ্রদ্ধা ছিল মার্কসের যে সকল পান্ডুলিপিই তিনি স্ত্রীকে দেখাতেন এবং তাঁর মতামতকে অপরিসীম মূল্য দিতেন। ১৮৬৬ সালে একথা তিনি নিজেই আমাকে বলেছিলেন। ছাপাখানায় পাঠানোর আগে স্বামীর পান্ডুলিপিগুলি শ্রীমতি মার্কস নিজের হাতে কপি করে দিতেন।
মদনমোহন গুহ তাঁর ’কার্ল মার্কসের জীবনে জেনি’ বইয়ে লেখেন- তাঁর(জেনি মার্কস) সময় কেটে যেতো মার্কসের লেখা প্রবন্ধগুলি কপি করতে করতে। তাতে তিনি আনন্দ পেতেন। পেতেন সান্ত¡না। তদুপরি প্রবন্ধগুলি কপি করতে গিয়ে সেগুলি তাঁর পড়া হয়ে যেতো। বেশ ভালভাবেই এরফলে বিশ্বের তদানীন্তন রাজনৈতিক পরিস্থিতি সম্পর্কে তিনি ওয়াকিবহাল হবার সুযোগ পেতেন।(পৃ: ৫৯)
১৯৪৭ সালের ফেব্রুয়ারীতে তাদের তৃতীয় সন্তান এডগারের জন্ম হয়। তাদের এই সন্তান ১৯৫৫ সােেল ৮ বছর বয়সে মারা যান। 
১৯৪৮ সালের মার্চ মাসের ৩ তারিখ প্রুশিয়া সরকারের অনুরোধে বেলজিয়াম সম্রাটের স্বাক্ষরে  কার্ল মার্কসকে ২৪ ঘন্টার মধ্যে ব্রাসেলস ছেড়ে যেতে বলা হয়। ব্রাসেলসের পুলিশ তাকে আটক করে পুলিশ হাজতে রেখে দেয়। জেনি মার্কস  থানায় তার খোঁজ নিতে গেলে পুলিশ তাকেও থানায় আটকে রাখে। পরদিন তাদের মুক্তি দেয়া হলেও তাদেরকে ৫ মার্চের মধ্যে ব্রাসেলস ছেড়ে প্যারিসে চলে যেতে হয়। যাবার সময় তারা কোন কিছুই নিয়ে যেতে পারেননি। জেনি মার্কস তাঁর এক স্মৃতিকথায় এ বিষয়ে লিখেন- চলে আসার সময় দিনটা ছিল ঠান্ডা, মেঘে-ঢাকা, বিরস আর বাচ্চাদের শরীর গরম রাখা শক্ত হয়ে পড়েছিল। এদিকে আমার কোলের বাচ্চার বয়স তখন মাত্র এক বছর। 
 প্যারিসে কিছুদিন থাকার পরে সেখানেও পুলিশ এসে তাদের প্যারিস ছাড়তে বলল। এরপর তারা চলে যান জাার্মানে। 
১৯৪৮(৪৯?) সালের মে মাসের দিকে জেনী ৪র্থ বারের মত অন্তঃস্বত্বা হন। বিপ্লবী কাজের জন্য জার্মান থেকে  কার্ল মার্কস ও এঙ্গেলসকে বিতাড়িত হতে হলো। এবার আরকেবার কপর্দকশুন্য অবস্থায় জেনী মার্কসকে ঘর ছাড়তে হলো। তাকে গর্ভবতী সন্তানসহ আরো তিন সন্তানকে নিয়ে আশ্রয় নিতে হলো ট্রিয়ারে তার মায়ের কাছে। চতুর্থ সন্তান হেনরী এডওয়ার্ড গুইডো ১৯৪৯ সালের সেপ্টেম্বরে জন্মগ্রহণ করেন। তবে একবছর না হতেই তাদের এই সন্তান মারা যায়। 
১৮৪৯ সালের সেপ্টেম্বর মাসে জেনি মার্কস ও কার্ল মার্কস লন্ডনে আসেন। কয়েকদিন হোটেলসহ বিভিন্ন স্থানে থাকার পরে তারা সোহো নামক এলোকার ৬৪ নং ডিন স্ট্রীটের একটি বাড়িতে উঠেন। এসময় তাদের পরিবারে চরম অর্থনৈতিক বিপর্যয়ের কাল চলতে থাকে। 
১৮৫০ সালের ২০ মে জেনি মার্কস ফ্রাঙ্কফুর্টের জনৈক ভাইডেমারের কাছে একটি মর্মস্পর্শী চিঠি লিখেন। এই চিঠিতে বোঝা যায় তারা কী নিদারুণ অর্থকষ্টে জীবন অতিবাহিত করেছেন। কিন্তু তারপরেও জেনী মার্কস বিপ্লবকে বিসর্জন দেয়ার কথা চিন্তা করেননি। ভাইডেমায়ারের কাছে তিনি লেখেন- ’ ... কার্লের প্রাপ্য কিছু পারিশ্রমিক পেয়ে থাকলে কিংবা ভবিষ্যতে পেলে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব তা যেন আমাদের পাঠিয়ে দেন। টাকাটা আমাদের ভীষণ, ভী-ষ-ণ দরকার।’
আর্থিক অভাব অনটনের কথা লেখার পরে তিনি লেখেন- মনে করবেন না এইসব তুচ্ছ ছোটখাটো দুঃখ দুর্দশা, ভাবনা চিন্তা আমার মনোবল নষ্ট করে দিয়েছে। আমি খুব ভালো করেই জানি যে আমাদের সংগ্রাম বিচ্ছিন্ন কোন ব্যাপার নয়। ...। সত্যি সত্যি যা আমার আত্মাকে কষ্ট দিচ্ছে এবং হৃদয়কে রক্তাক্ত করছে, তা হলো এই চিন্তা যে, ছোট খাটো ব্যাপারের জন্য আমার স্বামীকে কতোই না কষ্ট সহ্য করতে হচ্ছে, আমার পক্ষে কত সামান্য পরিমাণেই না তার সাহায্যে আসা সম্ভব হচ্ছে, এবং যিনি স্বেচ্ছায় ও সানন্দে অসংখ্য লোকের উপকার করে এসেছেন, তিনি নিজে কত না অসহায়! কিন্তু তাই বলে, প্রিয় হের ভাইডেমার, ভুলেও এ কথা ভাববেন না যে, আমরা কারো কৃপাপ্রার্থী। (সূত্রঃ কার্ল মার্কস মানুষটি কেমন ছিলেন, জাকির তালুকদার, পৃ:১০৩, ঐতিহ্য, ফেব্রুয়ারি, ২০১৫)
এ সময় তাদের সংসারের টানাটানি থাকলেও তাদের বাড়িতে যখন কেউ আসতেন তাদেরকে জেনি নিজের সাধ্যমত আপ্যায়ন করার চেষ্টা করতেন। পোল লাফার্গ তার কার্ল মার্কস স্মরণে প্রবন্ধে লিখেছেন- সকল দেশের বহু শ্রমিকই শ্রীমতি মার্কসের আতিথেয়তায় ধন্য হয়েছেন। 
সংসারের টানাটানি সামাল দিতে তিনি হল্যান্ডে মার্কসের মামা লিওন ফিলিপসের কাছে সহায়তা চান। কিন্তু ফিলিপস সহায়তা দেননি। এসময় তিনি খুব ভেঙে পড়েন। 
তাদের পঞ্চম সন্তানের নাম জেনি ইভালিন ফ্রান্সিস। ১৮৫১ সালের ২৮ মার্চ তার জন্ম হয়। ১৮৫২ সালের ১৪ এপ্রিল এক বছরের কিছু বেশি সময় বেঁচে থেকে তিনি মৃত্যুবরণ করেন।  
১৮৫৫ সালের ১৬ জানুয়ারি ৬ষ্ঠ সন্তান জেনি জুলিয়া এলিযেনর জন্মগ্রহণ করেন। ৭ম সন্তানটি ১৮৫৭ সালের ৬ জুলাই জন্মগ্রহণ করে এবং মারা যায়। সেই সময়গুলোতে  অনেক সময় তারা তাদের পরিবারের জন্য দু’বেলা দু’মুঠো ভাত জোগাড় করতে পারতেন না। পরে তার এক বান্ধবী লীনা শ্যোলা তার বাড়িতে আসেন। জেনির দুরবস্থা দেখে তিনি ব্যথিত হন এবং জেনিকে কিছু সহায়তা করেন। পরে ১৯৬০ সালে তারা আবার অর্থকষ্টে পড়েন। কার্ল মার্কস আমেরিকার ট্রিব্রিউন পত্রিকায় লেখালেখি করে যে আয় করতেন তা কমে যায়। ঠিক সেই সময়ে জেনি মার্কস বসন্ত রোগে আক্রান্ত হন। রোগের কারণে তার দুই চোখ নষ্ট হতে বসেছিল। 
অপরদিকে তার মেয়েদেরও বয়স বাড়ছিল। বয়সের সাথে সাথে তাদের নানা আনুষঙ্গিক খরচও বেড়ে যাচ্ছিল। অথচ সে অনুযায়ী আয় উপার্জন ছিল না। তবে ১৯৬৪ সালের দিকে কার্ল মার্কসের মামা/কাকা মারা গেলে তিনি উত্তরাধিকারসূত্রে কিছু সম্পত্তি ও অর্থ পান। এ সময় তারা কিছুটা অনটন থেকে রক্ষা পান। একইসাথে এঙ্গেলসও ১৯৫০ থেকে তাদের পরিবারকে মাঝে মাঝে আর্থিক সহায়তা দিতেন। এভাবেই তাদের সংসার জীবন কেটে যাচ্ছিল। জেনি মার্কস বিচক্ষণতার সাথে এই সমস্যা মোকাবেলা করে আসছিলেন এবং কার্ল মার্কসের লেখালেখি ও রাজনৈতিক কাজ যেন থেমে না থাকে সেই চেষ্টা তিনি করে যাচ্ছিলেন। 
জেনি মার্কসের চার সন্তান খুব কম বয়সে মারা যায়। বাকি তিন কন্যা সন্তান যারা বেঁচে ছিলেন তারাও নানাভাবে সংগ্রামে যুক্ত ছিলেন। 
১৮৮১ সালের ২ ডিসেম্বর জেনী মার্কসের মৃত্যু হয়। ৫ ডিসেম্বর হাইগেট সমাধিক্ষেত্রে তাকে সমাধিস্থ করা হয়। সমাধিক্ষেত্রে আইভি লতায় ঢাকা মার্বেল পাথরের উপর খোদাই করে জেনি ফন ভেস্টফালেনের নামের সাথে লেখা রয়েছে- কার্ল মার্কসের প্রিয়তমা পত্নী|(The Beloved Wife of Karl Marx).
 সমাধিক্ষেত্রে অন্ত্যেস্টিক্রিয়া অনুষ্ঠানে দাঁড়িয়ে এঙ্গেলস জেনী মার্কস সম্পর্কে বলেছিলেন, ”এই মহিলা, তার তীক্ষ্ণ বুদ্ধিমত্তা একইসাথে রাজনৈতিক বিচক্ষণতা, চরিত্রের মধ্যে ছিল উদ্যম এবং আবেগ, এবং সংগ্রামের ক্ষেত্রে তার সহযোদ্ধাদের প্রতি তাঁর অপরিসীম উৎসর্গীকৃত মানসিকতার মাধ্যমে গত ৪০ বছরে যে অবদান রেখে গেছেন তা কোনকালেই জনগণের কাছে প্রকাশ পায়নি এবং সমসাময়িক কোন সংবাদ মাধ্যমে এই কীর্তি ঘোষিত হয়নি। এটা এমন যা অভিজ্ঞতার মাধ্যমে আমরা অনুভব করেছি। 
কিন্তু এই একটি বিষয়ে আমি নিশ্চিত যে, রিফিউজি কমিউনের স্ত্রীরা তাকে প্রায়ই স্মরণ করবে, আর বাকি আমরাা তার সাহসী ও প্রাজ্ঞ পরামর্শ অবশ্যই মিস করবো....। 
আমি এখানে তার গুণাবলীর কথা বলতে চাই, যা তার বন্ধুরা জানে এবং স্মরণে রাখবে, তা হল, অপরকে সুখী করে যিনি নিজে সুখী বোধ করেন, তিনি হলেন তাই।” 
(The contribution made by this woman, with such a sharp critical intelligence, with such political tact, a character of such energy and passion, with such dedication to her comrades in the struggle — her contribution to the movement over almost forty years has not become public knowledge; it is not inscribed in the annals of the contemporary press. It is something one must have experienced at first hand.

But of one thing I am sure: just as the wives of the Commune refugees will often remember her — so to, with the rest of us have occasion enough to miss her bold and wise advice, bold without ostentation, wise without ever compromising her honor to even the smallest degree. I need not speak of her personal qualities, her friends know them and will not forget them. If there ever was a woman whose greatest happiness was to make others happy it was this woman.)
তথ্যসূত্রঃ
৮. কার্ল মার্কস মানুষটি কেমন ছিলেন, জাকির তালুকদার, পৃ:১০৩, ঐতিহ্য, ফেব্রুয়ারি, ২০১৫।
৯. কীর্তিময় এক বন্ধুত্ব, শেখর দত্ত, বিপ্লবীদের কথা প্রকাশনা, নভেম্বর, ২০১৪।
১০. মার্কস এঙ্গেলস স্মৃতি, বোধি, বাংলাদেশ সংস্করণ, অমর একুশে গ্রন্থমেলা, ২০১১।
১১. কার্ল মার্কসের জীবনে জেনি, মদনমোহন গুহ, মিরান্দা পাবলিশার্স, পশ্চিমবঙ্গ বইমেলা, ২০০১।