Tuesday, April 16, 2013

জনগণের কছ থেকে পার্টির অর্থসহায়তা নিয়ে ফেসবুকে বিতর্ক-১

সুপ্রভাত বাংলাদেশ পত্রিকায় হট নিউজ ইউ পি ডি এফের লিফলেট , চাঁদা দাবী ঃ শেয়ার করতে না পেরে কপি দিলাম ।
বৈসাবি’র শুভেচ্ছা নিন চাঁদাটাও পৌঁছে দিন!
• নিজস্ব প্রতিবেদক, খাগড়াছড়ি
গাছ-বাঁশের ট্রাক আর ঠিকাদারী কাজের চাঁদাবাজির পর এবার চাঁদার খড়গ নেমে এসেছে বৈসাবি’র ওপর। খাগড়াছড়িতে দরিদ্র থেকে ধনী সর্বস্তরের মানুষ যেনো অতিষ্ঠ চাঁদাবাজের উৎপাতে। তাও আবার লুকোচুরি করে নয়, একেবারে মুদ্রিত লিফলেট ঘরে ঘরে পৌঁছে দিয়েছে খাগড়াছড়ির প্রভাবশালী একটি আঞ্চলিক রাজনৈতিক দল।

বৈসাবি উৎসবের শুভেচ্ছার নামে দেয়া এই চিঠিতে বৈসাবি উৎসবে অতিথি আপ্যায়নে কী কী খাবার পরিবেশন করা যাবে এবং কী কী খাবার পরিবেশন করা যাবে না, সেটিরও বাধ্যবাধকতা আরোপ করা হয়েছে । তবে মদ পানের ওপর কোন বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়নি। নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছে, চাঁদার হারও। লিফলেটে উল্লেখ করে দেয়া হয়েছে, চাঁদা পৌঁছে দেয়ার নির্দিষ্ট ঠিকানা এবং ব্যক্তির নামও। একই সাথে উৎসবের সময়সীমাও বেঁধে দিয়েছে সংগঠনটি। এই নিয়ে পাহাড়ি চাকরিজীবীদের মাঝে প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।

প্রধানতম একটি সামাজিক উৎসবের আগে চাঁদার এই চিঠি নিয়ে পাহাড়িদের মধ্যে চরম ক্ষোভ দেখা দিলেও ভয়ে কেউ-ই মুখ খুলছেন না। সাদা কাগজে উভয় পৃষ্ঠায় মুদ্রিত ওই চিঠি’র প্রথম লাইন বাদ দিলে পুরোটাই পার্বত্য চট্টগ্রামের পূর্ণস্বায়ত্তশাসনের পক্ষে প্রণোদনামূলক এবং চাঁদা চাওয়ার যৌক্তিকতা তুলে ধরা হয়েছে। চিঠিতে উল্লেখ করা হয়, গত বছরের ২৫ নভেম্বরও এই ধরনের একটি চিঠি দেয়া হয়েছিলো। কিন্তু অনেকে সাড়া দেননি। তাই তাদেরকে এবার একসাথে দ্বিগুণ টাকা দেয়ার তাগাদা দেয়া হয়েছে।

বার্ষিক চাঁদার হার :

প্রথমশ্রেণীর চাকরিজীবী মূল বেতনের ৩ ভাগ হারে, দ্বিতীয়, তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণীর চাকরিজীবী মূল বেতনের ২ভাগ হারে এবং চাকরিজীবী নন, এমন পরিবারের ক্ষেত্রে বছরে ন্যুনতম ৩শ, ৪শ অথবা ৫শ টাকা হারে সামর্থ অনুযায়ী তহবিলে টাকা প্রদান করবেন। আগামী ১২ এপ্রিলের মধ্যেই সংশ্লিষ্ট সমন্বয়কের মাধ্যমে তহবিলে আর্থিক সহায়তা প্রদানের জন্য বিশেষভাবে অনুরোধ জানানো হয়। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বেশ কয়েকজন পাহাড়ি চাকরিজীবী ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন। তারা বলেন, বছরে একটি উৎসব করবো, তাও চাঁদার বখরা। ভেবেছিলাম, অনুকূল পরিবেশে একটু আনন্দ করে পার্বন করবো। সীমিত টাকার মধ্যেও চাঁদার ভাগ বসালে, বিজু করতে কষ্ট হয়ে যাবে।

বৈসাবির খাবারে বাধ্যবাধকতা :

একই চিঠিতে বৈসাবি পালনের ক্ষেত্রে ২ দফা সিদ্ধান্ত ও আহ্বান জানানো হয়। এতে উল্লেখযোগ্য হলো, বৈসাবিতে ঘরে ঘরে পাজন ও জুম্মদের তৈরি খাবার ছাড়া মিষ্টি, সেমাই, মাছ, মাংস ইত্যাদি পরিবেশন না করা এবং বর্জন করা। কম বয়সী ছেলে মেয়েদের মদ বা মাদক জাতীয় কিছু পরিবেশন না করা, নিজস্ব পঞ্জিকা মত উৎসব পালন, দেশের সামগ্রিক পরিস্থিতিতে সতর্ক থাকা এবং বিজুতে পৌর এলাকায় রাত ১১টা আর গ্রামাঞ্চলে রাত ১০টার মধ্যে বৈসাবি খাবার পরিবেশন বন্ধ রাখা। কোন সংগঠনের নাম উল্লেখ না করে দেয়া লিফলেটের নিচে খাগড়াছড়ি সদর উপজেলা ইউনিটের ভারপ্রাপ্ত সমন্বয়ক পুলক চাকমা ও অর্থ চীফ অনিলের নাম ও স্বাক্ষর দেয়া হয়েছে। এই ব্যাপারে ইউনাইটেড পিপলস্‌ ডেমোক্রেটিক ফ্রন্টের কেন্দ্রীয় প্রচার ও প্রকাশনা বিভাগের পক্ষে নিরন চাকমা বলেন, এই ধরনের একটি চিঠি আমাদের পক্ষ থেকে ছাড়া হয়েছে। এটি আইনত বৈধ কী না? সে প্রশ্নের জবাব তিনি এড়িয়ে যান। ইউপিডিএফ’র আরেক নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে মিষ্টি জাতীয় খাবার এবং মাছ-মাংস জাতীয় খাবারের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ প্রসঙ্গে বলেন, পাহাড়ি জনগণের অর্থনৈতিক সামর্থ্যের কথা বিবেচনা করেই এই আহ্বান জানানো হয়েছে।

গণচিঠি প্রসঙ্গে ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট এর জেলা সমন্বয়কারী প্রদীপন খীসা বলেন, প্রতিটি গণতান্ত্রিক সংগঠনই জনগণের টাকায় পরিচালিত হয়। সে রকম সহায়তার জন্যই এই চিঠি।

এদিকে বিজুতে বিশেষ খাবার বর্জন বিষয়ে সম্মিলিত বৈসাবি উদযাপন কমিটি-খাগড়াছড়ি’র সদস্য-সচিব দীপায়ন চাকমা সাংবাদিকদের জানান, কৃচ্ছতা সাধন এবং ধনী-গরীবের মধ্যে ব্যবধান কমানোর উদ্দেশ্যেই মূলত: এমন সিদ্ধান্ত হয়ে থাকতে পারে। তার অর্থ এই নয় যে, কারো সামর্থ্য থাকলে বা ইচ্ছা করলে ভালো খাবারের ব্যবস্থা করতে পারবেন না। এক্ষেত্রে কোন বাধ্যবাধকতা আছে বলে জানিনা। চাঁদা আর খাবারের বিধি-নিষেধের লিফলেট সর্ম্পকে জানতে চেয়ে খাগড়াছড়ির অনেক বিশিষ্ট ব্যক্তিকে ফোন দেয়া হলে তারা কেউ-ই এই বিষয়ে খোলামেলা কথা বলতে রাজী হননি। কেউ কেউ সরাসরি নিরাপত্তাহীনতার কথাই উল্লেখ করেন। তবে নাম প্রকাশ না করার শর্তে সবাই এটিকে রাজনীতির নামে চরম বাড়াবাড়ি বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

জেলা পুলিশ সুপার শেখ মো. মিজানুর রহমান চাঁদা চেয়ে গণ লিফলেট বিলি’র সত্যতা স্বীকার করে বলেছেন, আমরা জেলার সব এলাকায় স্থানীয় আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পাশাপাশি স্থানীয় জনপ্রতিনিধি এবং নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিদের মাধ্যমে চাঁদা প্রদানে বিরত থাকার জন্য বার্তা প্রচার করেছি। এছাড়া চিহ্নিত চাঁদাবাজ-দুর্বৃত্তদের ধরতে বিশেষ অভিযানও চলছে।
Unlike · · · April 11 at 8:16pm

  • Mithun Chakma Jumma ইউপিডিএফ পার্টি পরিচালনা করতে আর্থিক সহায়তা বাদেও আরো অন্য বিষয়ে সিদ্ধান্ত লিখিতভাবে জানিয়েছে। যেমন, বৈসাবি উৎসবে বাহুল্য বর্জন করা ইত্যাদি। আর অর্থ সহযোগিতা চাওয়াকে চাঁদা বলা যেতে পারে। কিন্তু জনগণ স্বতস্ফূর্তভাবে অর্থ সহায়তা দিলে তা নিয়ে এত বিতর্ক আনা মানে তাতে অন্য উদ্যেশ্য আদায়ের চেষ্টা করা। আমরা বরং ইউপিডিএফএর অর্থ সহযোগিতা প্রদানের নির্দেশমূলক আহ্বান পরিহার করে জনগনকে উদ্বুদ্ধ-উৎসাহিত করে অর্থ সহায়তা প্রাপ্তির ব্যবস্থা করতে অনুরোধ জানাতে পারি। আমাদের যারা শিক্ষিত তারা জু্ম্ম জনগণের অধিকার আদায়ের লক্ষে তাদের দায়িত্ব এড়িয়ে যেতে পারেন না।
  • Nona Changma সহায়তা চাঁদা নিয়া জনভীতি দূর করিতে ইউপিডিএফের কেন্দ্রীয় কমিটি কোন উদ্যোগ নিয়াছে কি? চাঁদা নিয়া প্রত্যন্ত আদামে ত্রাস রুখিতে উদ্যোগ চাই।
  • Jr Karbari মিঠুনবাবু @ চাঁদা বলা অন্যায় হবে বরং তোলাবাজি বলাই ভালো ! চাঁদা ছাড়া একটি রাজনৈতিক পার্টি চলতে পারেনা তা জানি ,এমনকি আওয়ামী ,বি এনপির চাঁদার সিস্টেম আছে কিন্তু পাহাড়ে একটি প্রতিযোগী সংগঠন থাকতে এভাবে সাধারণ জুম্মদের থেকে একপ্রকার জোর করে অর্থ আদায় কোন প্রকার রাজনৈতিক স্ত্রেতাজিতে পরে জানা নেই !
  • Mithun Chakma Jumma আমরা বরং ইউপিডিএফএর অর্থ সহযোগিতা প্রদানের নির্দেশমূলক আহ্বান পরিহার করে জনগনকে উদ্বুদ্ধ-উৎসাহিত করে অর্থ সহায়তা প্রাপ্তির ব্যবস্থা করতে অনুরোধ জানাতে পারি। আমাদের যারা শিক্ষিত তারা জু্ম্ম জনগণের অধিকার আদায়ের লক্ষে তাদের দায়িত্ব এড়িয়ে যেতে পারেন না।
  • Nona Changma জনগণ সাহায্য করিতে চায় না কেন?

    একজন চল্লিশের উপরে মুরুব্বীর কাছে যদি জেএসএস ইউপিডিএফের ২২ বছরের যুব কর্মী হুমকির সুরে সহায়তার বদলে চাঁদা চাহিয়া বসে তো মুরুব্বীর আত্মসম্মানে আঘাত লাগবে না কি ? ঐ আহত মুরুব্বী ১০জনকে চাঁদা না দিতে মানা করলে দলের ক্ষতিই বৈকি।
  • Nitta Lal Chakma গত বছরের ২৫ নভেম্বরও এই ধরনের একটি চিঠি দেয়া হয়েছিলো। কিন্তু অনেকে সাড়া দেননি। তাই তাদেরকে এবার একসাথে দ্বিগুণ টাকা দেয়ার তাগাদা দেয়া হয়েছে- কেন ? ৥mithun Chakma Jumma এই ধরণের তাগাদা দিলেতো জনগণ যে স্বত:পূর্ত হয়ে দিচ্ছে না বাধ্য হয়ে দিচ্ছে তা প্রশ্ন থেকে যায়, এছাড়াও জুম্ম ব্যাম্বু বাবুর একজন চল্লিশের উপরে মুরুব্বীর কাছে যদি ২২ বছরের যুব কর্মী হুমকির সুরে সহায়তার বদলে চাঁদা চাহিয়া বসে তো মুরুব্বীর আত্মসম্মানে আঘাত লাগবে না কি ? আপনারা যারা ইউপিডিএফের কেন্দ্রীয়তে বসে কাজ করেন আপনারা নিশ্চই জানেন যে, আপনাদের তাগাদা পেয়ে গ্রামাঞ্চলে আপনাদের সেই 22 বছর বয়সী যুব কর্মীরা য়ে কিনা করে বসে। তা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করছি। সুতরাং এভাবে চিঠি দিয়ে আর্থিক সহযোগিতা চাওয়াটাও কতটুকু যুক্তিযুক্ত এবং তাও ঢালাওভাবে কেন?
  • Jr Karbari পার্টির অনেক দায়িত্ব প্রাপ্ত কর্মী রাজনৈতিক কলা কৌশল বুজেনা ,জুম্ম নেশন গ্রুপে এই পোস্টের জৈনিক শান্তি চাকমার রিয়েক্সন দেখুন ,সম্ভবত পাতি নেতা হবে ! কারবারী একজন মুরুব্বি না হোক ,একজন অপরিচিত ব্যক্তির সাথে কি সম্বোধন করতে হয় ,তাও না জানলে এরা কি সেই উত্তরাধিকার সুত্রে প্রাপ্ত রাজনীতি শুরু করেছে !
  • Nona Changma যারা সহায়তা চাইবে তাদের আচরণ সংযত হয়া ভাল। কালেক্টর লেভেলে ঠাণ্ডা শিষ্টাচারি অভিজ্ঞ মানুষ দরকার। আমার বন্ধু জানায় তাদের কমলছড়িতে এক নাইনের ছেলে ডাইরেক্ট হুমকি দিয়ে চাদা চায়। এটা উচিৎ না।
  • Mithun Chakma Jumma এত বছর লড়াইয়ের সাথে সংগঠনের সাথে সরাসরি কাজে থেকে অনেক অভিজ্ঞতাই লাভ করেছি। জানা রয়েছে অনেক শিক্ষিত সচেতন ব্যক্তি পার্টি থেকে এমনভাবে চলে গেছেন যেন মনেহয় পার্টি একটি যাত্রী ছাউনী। আমি রিয়েল আইড ব্যবহার করি। তাই দায়িত্বের খাতিরে এবং চক্ষুলজ্জ্বা কারণে বা ভুল বোঝাবুঝি হবে ভেবে অনেক কিছুই বলতে পারি না। শুধু এটুকুই বলবো, ইউপিডিএফ এবং জেএসএস শুধু কর্মী বা নেতাদের নয়, তা পার্বত্য জনগণের সবার।
  • Mithun Chakma Jumma একটি কথা বলি। আশাকরি ভুল বুঝবেন না। আমি দায়িত্ব নিয়ে কথা বলি। সুতরাং কেউ যখন দায়িত্ব নিয়ে আলোচনা করতে চান তখন আলোচনা এগোবে। বকবক করার জন্য কোনো কথা বলতে চাইনা।
  • Monotuk Changma একটা পার্টি হিসেবে জনগণের সাহায্য চাওয়াতো কোন অপরাধ নয়। ইউপিডিএফতো জোরপূর্বক চাঁদা দাবি করছে না। চিঠি লিখে আহ্বান জানিয়ে যদি সহযোগিতা চায়, আর জনগণ যদি সহযোগিতা দেয় তাহলে তাতে প্রশ্ন তোলার কি আছে? যখন কোন পার্টি জোরপূর্বক চাঁদা আদায় করে তখন আমরা ওই পার্টিকে গালিগালাজ করি। আর যখন কোন পার্টি আন্তরিকভাবে সহযোগিতা চায় তখনও গালিগালাজ করতে ছাড়ি না। এটা আমাদের মানসিকতার সমস্যা নয় কি?
  • Mithun Chakma Jumma এখানে একটা কথা বলে রাখি যারা শিক্ষিত তারা পার্টির কাজকে যাত্রী ছাউনী মনে করলে বা পার্টির কাজ বা পার্টিকে সহযোগিতার কাজ নিজের কাজ মনে না করলে এবং যারা শিক্ষা-দীক্ষায় এগিয়ে যায়নি তারা পার্টিকে আশ্রয়স্থল মনে করলে আমরা যারা পার্টিতে কাজ করছি তাদের আরো অনেক কিছু পেরিয়ে যেতে হবে।
  • Nitta Lal Chakma ইউপিডিএফতো জোরপূর্বক চাঁদা দাবি করছে না - কিন্তু যারা গত নভেম্বরে যারা সাড়া দেয়নি তাদেরকে এবার একসাথে দ্বিগুণ টাকা দেয়ার তাগাদা দেয়া হচ্ছে তা কি জোর পূর্বক নয়, আর একসাথে বাক্যটি শুধু জোরপূর্বক কথাটির ইঙ্গিত দিচ্ছে না সাথে জনগণকে হুমকি হিসেবেও ইঙ্গিত ‍দ...See More
  • Gumetkulya Fenikulya ঠিকই বলেছেন.. Mithun Chakma Jumma- " ইউপিডিএফ এবং জেএসএস শুধু কর্মী বা নেতাদের নয়, তা পার্বত্য জনগণের সবার।" আমাদের জাতির এমনই দূভার্গ্য যে, আমরা যেমন নেতা হতে জানিনা, নেতৃত্বও মানতে জানিনা... যেটা আমরা জানি সেটা হলো কারনে অকারনে কারোর নেতিবাচক সমালোচনা করা.,, ।
  • Odong Chakma " ইউপিডিএফ এবং জেএসএস শুধু কর্মী বা নেতাদের নয়, তা পার্বত্য জনগণের সবার" - কথাটা সত্য হলেও স্ববিরোধী। ‘পার্বত্য জনগণের সবার’ - এর সপক্ষে কোন সূচক আছে কী, যেগুলো দেখে আমরা বলতে পারতাম উভয় পার্টি জনগণের সবার? আমার বিশ্লেষণ বা পর্যবেক্ষণ মতে, উভয় পার্টি ...See More
  • Mithun Chakma Jumma ডিয়ার Odong Chakma , আপনার এই কথাটির সাথে একমত হচ্ছি বা হচ্ছি না। তবে এই প্রশ্নের মীমাংসাটি আসলে ডিম আগে না মুরগী আগেরই মতোন। নেপালে মাওবাদীরা যখন লড়াইয়ে ছিলেন তখন প্রচন্ড দুটি তাত্ত্বিক কথা বলেছিলেন ১. মৃত্যুও এধরণের বিপ্লবী প্রক্রিয়া। ২. দক্ষিণ এশিয়...See More
  • Odong Chakma ৥মিথুনবাবু, ভালো কথা - নেতৃত্বের শক্তির উপর ”সবকিছু” নির্ভর করে না, বরং বলেন ’অনেককিছু’ নির্ভর করে। ভাই, আমি খুব বেশি তাত্ত্বিক নই। সাদা চোখে যা দেখি তা বলার চেষ্টা করি। ডিম আগে নাকি মুরগী আগে সেই বিতর্কে যাওয়ার খুব প্রয়োজন আছে বলে মনে করি না। বৌদ্ধদর্...See More
  • Odong Chakma ৥মিথুনবাবু, ভালো কথা - নেতৃত্বের শক্তির উপর ”সবকিছু” নির্ভর করে না, বরং বলেন ’অনেককিছু’ নির্ভর করে। ভাই, আমি খুব বেশি তাত্ত্বিক নই। সাদা চোখে যা দেখি তা বলার চেষ্টা করি। ডিম আগে নাকি মুরগী আগে সেই বিতর্কে যাওয়ার খুব প্রয়োজন আছে বলে মনে করি না। বৌদ্ধদর্...See More
  • Mithun Chakma Jumma "জনসাধারণ দু’বেলা ভাতের পক্ষে রায় দেবে"? তাহলে তো পার্বত্য চট্টগ্রামে লড়াই সংগ্রাম শুকিয়ে যেতো! ডিয়ার Odong Chakma শুনুন, আত্মমর্যাদা বা জাতিগত মর্যাদা এমন বিষয় যার জন্য ক্ষুধা কিছুই না! আমি তত্ত্ব নিয়ে কথা ঝারবো না। গ্লাসে পানি নেই, গ্লাসে অর্ধেক পানি রয়েছে, গ্লাসে অর্ধেক পানি নেই। এটাতো?

No comments:

Post a Comment